মুন্সীগঞ্জের মমতাজ অন্ধকার থেকে আলোতে, একজন সফল চা-পানের দোকানী ।


অথর
সফলতার গল্প ডেক্স   ডোনেট বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২৪ জানুয়ারি ২০২০, ৫:৪১ অপরাহ্ণ | পঠিত : 217 বার
0
মুন্সীগঞ্জের মমতাজ অন্ধকার থেকে আলোতে, একজন সফল চা-পানের দোকানী ।

বাঙালী পারি না বলতে জানে না, বিদেশে থেকে ডিম ভাজা আর আলো ভর্তা খেয়ে টাকা উপার্জন করে দেশে পাঠাতে পারে, বেঁচে থাকার জন্যে যখন যা, তাই করতে জানে, সব চেয়ে বড় কথা হল, পরিবেশ পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে চলতে জানে। তবে প্রয়োজন হয় একটু উৎসাহ, ভালোবাসা আর শাহস জুগানো। সেই শাহস আর শক্তি প্রেরণা দাতা হল বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা, তার উৎসাহ আর প্রেরনায় আজ দেশের জন সংখ্যার অর্ধেক নারী ঘর বন্ধি অন্ধকার থেকে বাহিরে এসে কাজ করার শাহস ও শক্তি পেয়েছে, শহর, উপশহর আর গ্রামের হাট বাজার সব জায়গায়ই আজ মেয়েরা কাজ করছে, কথায়ও দোকানী, কথায়ও ব্যবসায়ী,

কথায়ও শ্রমিক, কোথায়ও চাকুরীজীবী, কর্ম জীবী আর শ্রমজীবী মেয়েদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এটা আমাদের জন্য সু-ভাগ্যের দরজা আরও খুলে যাচ্ছে, এমন এক সময় আসবে যখন মেয়েরা সম পয্যায় পুরুষের সাথে সর্বত্র এগিয়ে যাবে।বাংলাদেশ উন্নত বাংলাদেশে পরিনত হবে।চরাঞ্চল থেকে আসা মুন্সীগঞ্জ শহরের বাসিন্দা রাশিদা বেগম, স্বামী স্ত্রী দুই জনই চা-পানের দোকানী সাথে সিগারেট, কলা, বিস্কেট , কেক পাউরুটি, স্বামী রমিজ মাল পত্রের যোগান দেন, আর স্ত্রী দোকান চালায়, তবে দিনের একসময় স্বামী দোকান চালায় স্ত্রী বাসায় গিয়ে রান্নার কাজ সেরে খেয়ে দেয়ে দোকানে চলে আসে। কাজের মধ্যে স্বামী স্ত্রী মতের মতপার্থক্য নাই। থাকার ব্যবস্থাও জেল খানার মোড়ে, ডি.সি অফিস আরকোর্ট

কাচারির উত্তর পাশে, গাছ তোলায় ছাপরা ঘরে, দ্রেনের পাশে, তিন দিকের লম্বা টুলে বসে খরিদ্দাররা চা পান করে থাকে, তবে কোর্ট কাচারি চালু অবস্থায় ভিড় বেশি থাকে তখন স্বামী স্ত্রী দুই জনই খরিদ্দার সামলান।এক মাত্র মেয়ে মমতাজ তাদের খুবই আদরের মেয়ে, মেয়ের নামেই দোকানের নাম রেখেছে–মমতাজের চায়ের দোকান,মমতার স্থানীয় হরগঙ্গা কলেজের এইচ এস সি ২য় বর্ষের ছাত্রী, তাদের ইচ্ছা মেয়েকে বিয়ে না দিয়ে উচ্চ শিক্ষিত করে গড়ে তুলবে, রাসিদার শখ ডি.সি অফিসের অফিসাররা আর কোর্টে-এ কতো উকিল, জজ আসা যাওয়া করে আমার মেয়েও যদি একদিন তাদের মতো হতো কত আনন্দ পেতাম মেয়ের পড়াশুনার জন্য বাসাও নিয়েছে দোকানের পাশে। দৈনিক ডোনেট

বাংলাদেশ পত্রিকার পক্ষ থেকে শুভকামনা চায়ের দোকানি রাসিদার মেয়ে মমতাজ একদিন যেন উকিল, জজ, ডি.সি হন।

No Comments