ফুটবলারদের বিশেষ রুটিন


অথর
ফুটবল ডেক্স   ক্রীড়া অঙ্গন
প্রকাশিত :৫ এপ্রিল ২০২০, ৪:০০ অপরাহ্ণ | পঠিত : 181 বার
0
ফুটবলারদের বিশেষ রুটিন

করোনাভাইরাসের আতঙ্কে ছুটিতে থাকলেও, প্রধান কোচ জেমি ডেসহ ট্রেইনারদের পরামর্শে নিয়মিত ফিটনেস নিয়ে কাজ করছেন জাতীয় দলের ফুটবলাররা। এমনটাই জানিয়েছেন দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রুপু। কোভিড নাইন্টিনকে গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসকদের নির্দেশনা সঠিকভাবে পালন করতে ফুটবলারদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। দলীয় অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া এই পরিস্থিতিতে কীভাবে ফিটনেস ধরে রাখছেন সেটি দেখাতে ইতোমধ্যে ফেসবুকে একটি ভিডিও আপলোড করেছেন। করোনা আতঙ্কে বিপর্যস্ত দেশের ক্রীড়াঙ্গন। বিশ্বব্যাপী কোভিড নাইন্টিন নামক অণুজীব ক্রমান্বয়ে মহামারি রূপ নিয়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের শঙ্কায় অপ্রত্যাশিতভাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য ছুটিতে জাতীয় দলের ফুটবলাররা। যদিও এ ছুটি থেকে ফেরাটা হতে পারে আশরাফুল-জামাল ভূঁইয়া-মামুনুলদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। জাতীয় দলের খেলা নেই তাই কোচ জেমি'ডেও

ছুটিতে চলে গেছেন ইংল্যান্ডে তার পরিবারের কাছে। তবে সেখান থেকেই হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে খোঁজখবর রাখছেন দলের ফুটবলারদের। তার পরামর্শে এরই মধ্যে জাতীয় দলের খেলোয়াড়, কোচিং স্টাফ ও সংশ্লিষ্ট কর্তাদের নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপে 'বাংলাদেশ ন্যাশনাল ফুটবল টিম' নামে একটি গ্রম্নপ খুলেছে বাফুফে। সেখানে খুদে বা ভিডিও বার্তায় ফুটবলারদের দেয়া হচ্ছে নির্দেশনা। আর ইংল্যান্ড থেকেই বিষয়গুলো নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করছেন জেমি ডে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জাতীয় দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রুপু।এ প্রসঙ্গে রুপু বলেছেন, 'নিজের ঘরে অবস্থান করে, কোন খাবার খেলে ওজন বাড়বে না, এসব খেয়াল রাখতে হবে ফুটবলারদের। ডাক্তারদের নম্বরও দেয়া আছে। তারাও নির্দেশনা দিয়েছেন। খেলা আপাতত বন্ধ। খেলা শুরু হলে ফিটনেস ঠিক করে

নেওয়া হবে।'করোনাকে গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসকদের নির্দেশনা সঠিকভাবে পালন করতে ফুটবলারদের প্রতি আহ্বান জানান রুপু। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফুটবলারদের অনুশীলনে গুরুত্ব দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।ক্যাম্প বন্ধ থাকলেও কোচের নির্দেশনা যে মেনে চলছেন ফুটবলাররা তা ইতোমধ্যে জানা গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে। জাতীয় দলের খেলা না থাকায় আর নিজের ক্লাব সাইফ স্পোর্টিংয়ের ক্যাম্প বন্ধ হওয়ায় নিজ দেশ ডেনমার্কে পরিবারের কাছে চলে গেছেন জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। তবে সেখানে গিয়ে ঘরের মধ্যে অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন ফিটনেস ধরে রাখার জন্য। প্রতিদিন সকাল বেলা নাশতার টেবিলে বসার আগে ঘাম ঝরিয়ে নিচ্ছেন। বাকিদের উদ্বুদ্ধ করতে এই অনুশীলনের ভিডিও দিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়াতেও। ফেসবুকে দেয়া জামালের ৩ মিনিটের সেই ভিডিও পোস্টে দেখা গেছে বাসার ড্রইংরুমে ভারোত্তোলনের পাশাপাশি স্ট্রেচিংসহ নানা কসরতই হচ্ছে তাতে। আর সবকিছুই হচ্ছে আনুষ্ঠানিকতার আড়ালে। গায়ে দিয়েছেন কালো ট্র্যাকসু্যট। শুধু ঘরে নয়, ঘরের বাইরে গিয়েও জামাল অনুশীলনের এই চর্চা করছেন। রাস্তার এক পাশে গাড়ি চলছে, অন্য পাশে দৌড়াচ্ছেন। অবশ্য করোনার কারণে দূরত্ব মেনে চলতে দেখা গেছে। আবার সেভাবে লোকজনও ছিল না। উঁচু সিঁড়ি ভাঙছেন একের পর এক। কাঙ্ক্ষিত জায়গায় পৌঁছে, আবার পেছনের দিকে নেমে আসছেন অনায়াসে। এভাবেই চলছে তার নিজেকে ফিট রাখার কৌশল। লিগ স্থগিত হয়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশে থাকার সময়ে ১৯ বার টয়লেট টিসু্য জাগল করে ভিডিও আপলোড করেছিলেন জামাল। জাতীয় দলের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দুটি ম্যাচ হওয়ার কথা ছিল এ বছরের ২৬ ও ৩১ মার্চ। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে স্থগিত হয়ে যায় ম্যাচগুলো।

No Comments