লুবোঝাই পিকআপ ভ্যানে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার ড্রাইভারসহ পাঁচজনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ আদালতের


অথর
আইন ও আদালত ডেক্স   ডোনেট বাংলাদেশ
প্রকাশিত :১০ মে ২০২০, ৯:১২ অপরাহ্ণ | পঠিত : 155 বার
0
লুবোঝাই পিকআপ ভ্যানে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার ড্রাইভারসহ পাঁচজনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ আদালতের

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে আলুবোঝাই পিকআপ ভ্যানের পাটাতনের বিশেষ চেম্বারে লুকিয়ে রাখা ৫০০ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার ওই পিকআপের ড্রাইভারসহ পাঁচজনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ রোববার (১০ মে) তাদের পাঁচজনকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এসময় ফেনসিডিল জব্দের ঘটনায় মোহাম্মদপুর থানায় মাদক আইনে করা মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে রাখার আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম। অপরদিকে তাদের আইনজীবীরা জামিনের আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলাম পাঁচজনের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গত শনিবার (৯ মে) দুপুরে অভিযান চালিয়ে মোহাম্মদপুর টাউন হলের সামনে থেকে তাদের গ্রেফতার করে

র‌্যাব। অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার মুহম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী। তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি একদল মাদক ব্যবসায়ী সীমান্ত এলাকা জয়পুরহাট থেকে আলুবোঝাই পিকআপের পাটাতনে বিশেষ চেম্বারে লুকিয়ে বড় ধরনের মাদকের চালান নিয়ে ঢাকার মোহাম্মদপুর টাউন হলে আসবে। এমন সংবাদ পেয়ে চালানটি ধরার জন্য মোহাম্মদপুরের টাউন হলের আশপাশে র‌্যাব-২ এর আভিযানিক দল অবস্থান নেয়। দুপুর সোয়া ২টায় মোহাম্মদপুর টাউন হল মার্কেটের উত্তর পাশে আলুভর্তি পিকআপটি থামলে র‌্যাব তাতে থাকা আরোহীদের গাড়ি থেকে নামিয়ে আনে। জিজ্ঞাসাবাদের সময় ড্রাইভার বাদে প্রত্যেকের কাঁধে ব্যাকপ্যাক ব্যাগ দেখা যায়। ব্যাগগুলো তল্লাশি করে প্রত্যেকটি ব্যাগের কোনোটিতে ৪০ বোতল কোনোটিতে ৫০ বোতল ফেনসিডিল পাওয়া

যায়। তিনি বলেন, এগুলো পাওয়ার পর পিকআপটিতে ব্যাপক তল্লাশি করা হয়। এক পর্যায়ে গাড়ির হেলপার জানান, পিকআপটির একটি গোপন চেম্বার রয়েছে যা বাইরে থেকে দেখা যায় না। স্বাভাবিক অবস্থায় কেউ এটি বের করতে পারবে না। স্থানীয় লোকজন ও বিভিন্ন মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে গাড়ির হেলপার পাটাতনের ভেতরে বিশেষ কায়দায় তৈরি করা চেম্বারের কাভার খুলে দিলে তাতে লুকিয়ে রাখা ৫০০ বোতল ফেনসিডিল পাওয়া যায়। তখন আটক করা হয় ড্রাইভার মো. আনিছুর মণ্ডল (৩২), হেলপার মো. বাচ্চু মিয়া (৩৬), আ. লতিফ (৫২), রিদোয়ান (২৯) ও মো. আবুল কালাম আজাদকে (৪৫)। জিজ্ঞাসাবাদে ড্রাইভার আনিছুর ও হেল্পার বাচ্চু অন্য তিনজনকে দেখিয়ে জানান, তারা তিনজন ঢাকার ক্রেতা। জয়পুরহাট থেকে ফেনসিডিল এনে ঢাকার পার্টিকে দেয়া তাদের কাজ। ওই তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানান, রিপন খালাসী নামের এক মাদক কারবারি ঢাকার মিরপুর ও মোহাম্মদপুর এলাকার মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করেন। রিপনের হয়ে তারা ঢাকার বিভিন্ন স্থানে থাকা মাদক ব্যবসায়ীদের চাহিদামত মাদক সরবরাহ করে থাকেন। গাড়ির মালিকানা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে ড্রাইভার জানান, রিপন নামের মাদক ব্যবসায়ী ঢাকা থেকে পিকআপটিতে বিশেষভাবে পাটাতনে চেম্বার তৈরি করে তা জয়পুরহাট পাঠান শুধু মাদকের চালান আনা-নেয়ার জন্য। ইঞ্জিন ও চেসিস নাম্বার খোঁজ করে দেখা যায়, গাড়িটির ইঞ্জিন ও চেসিস নাম্বার ঘঁষামাজা করে উঠিয়ে ফেলা হয়েছে এবং গাড়িটিতে থাকা রেজিস্ট্রেশন নাম্বারও ভুয়া। আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা পরস্পর যোগসাজশে ওই ফেনসিডিল সীমান্তবর্তী জয়পুরহাট থেকে ঢাকায় এনে বিভিন্ন পাইকারদের মাধ্যমে ক্রয়-বিক্রয় করে অবৈধভাবে লাভবান হয়ে থাকে।

No Comments