আবারো ব্যাটিং ব্যর্থতা, সিরিজ খোয়াল বাংলাদেশ - ডোনেট বাংলাদেশ

পরাজয়ের বৃত্তেই আটকে আছে বাংলাদেশ দল। বিশ্বকাপে টানা পাঁচ ম্যাচে হেরে শূন্য হাতে দেশে ফেরা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বাধীন দলটি ঘরের মাঠেও জয়ে ফিরতে পারছে না। ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচে হেরে সিরিজ খোয়াল বাংলাদেশ।

পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ১২৭/৭ রান করেও বাংলাদেশ হেরে যায় ৪ উইকেটে। শনিবার দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণে ১০৮/৭ রানেই ইনিংস গুটায় স্বাগতিকরা। ১১ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ নিশ্চিত করে পাকিস্তান।

শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৫ রানেই ২ ওপেনারের উইকেট হারিয়ে চাপের মধ্যে পড়ে যায় বাংলাদেশ দল।

তৃতীয় উইকেটে দলকে খেলায় ফেরান নাজমুল হোসেন শান্ত ও আফিফ হোসেন। এই জুটিতে তারা ৪৬ রান যোগ করেন। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ১০৮/৭ রানেই ইনিংস গুটায় বাংলাদেশ।

দলের হয়ে ৩৪ বলে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন শান্ত। এছাড়া ২১ বলে ২০ রান করেন আফিফ। ১২ ও ১১ রান করে করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান। বাকি ৫ ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি।

১০৯ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ১২ রানেই অধিনায়ক বাবর আজমের উইকেট হারায় পাকিস্তান। আগের ম্যাচে ৭ রানে তাসকিন আহমেদের বলে বোল্ড হওয়া এই তারকা পেসার এদিন ১ রানেই মোস্তাফিজুর রহমানের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন।

এরপর ফখর জামানকে সঙ্গে নিয়ে ৭৮ বলে ৮৫ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যান ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান। জয়ের জন্য শেষ ২৬ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল মাত্র ১১ রান। খেলার এই অবস্থায় ৪৫ বলে ৩৯ রান করে আউট হন রিজওয়ান।

৫১ বলে ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৭ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন ফখর জামান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১০৮/৭ (নাজমুল হোসেন শান্ত ৪০, আফিফ হোসেন ২০, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১২; শাহিন আফ্রিদি ২/১৫, শাদাব খান ২/২২)।

পাকিস্তান: ১৮.১ ওভারে ১০৯/২ রান (ফখর জামান ৫৭*,মোহাম্মদ রিজওয়ান ৩৯, হায়দার আলী ৬*, বাবর আজম ১)।

ফল: পাকিস্তান ৮ উইকেটে জয়ী।

সিরিজে তৃতীয় ও শেষ ম্যাচটি আগামী সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে।

পরাজয়ের বৃত্তেই আটকে আছে বাংলাদেশ দল। বিশ্বকাপে টানা পাঁচ ম্যাচে হেরে শূন্য হাতে দেশে ফেরা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বাধীন দলটি ঘরের মাঠেও জয়ে ফিরতে পারছে না। ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচে হেরে সিরিজ খোয়াল বাংলাদেশ।

পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ১২৭/৭ রান করেও বাংলাদেশ হেরে যায় ৪ উইকেটে। শনিবার দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণে ১০৮/৭ রানেই ইনিংস গুটায় স্বাগতিকরা। ১১ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ নিশ্চিত করে পাকিস্তান।

শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৫ রানেই ২ ওপেনারের উইকেট হারিয়ে চাপের মধ্যে পড়ে যায় বাংলাদেশ দল।

তৃতীয় উইকেটে দলকে খেলায় ফেরান নাজমুল হোসেন শান্ত ও আফিফ হোসেন। এই জুটিতে তারা ৪৬ রান যোগ করেন। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ১০৮/৭ রানেই ইনিংস গুটায় বাংলাদেশ।

দলের হয়ে ৩৪ বলে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন শান্ত। এছাড়া ২১ বলে ২০ রান করেন আফিফ। ১২ ও ১১ রান করে করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান। বাকি ৫ ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি।

১০৯ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ১২ রানেই অধিনায়ক বাবর আজমের উইকেট হারায় পাকিস্তান। আগের ম্যাচে ৭ রানে তাসকিন আহমেদের বলে বোল্ড হওয়া এই তারকা পেসার এদিন ১ রানেই মোস্তাফিজুর রহমানের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন।

এরপর ফখর জামানকে সঙ্গে নিয়ে ৭৮ বলে ৮৫ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যান ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান। জয়ের জন্য শেষ ২৬ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল মাত্র ১১ রান। খেলার এই অবস্থায় ৪৫ বলে ৩৯ রান করে আউট হন রিজওয়ান।

৫১ বলে ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৭ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন ফখর জামান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১০৮/৭ (নাজমুল হোসেন শান্ত ৪০, আফিফ হোসেন ২০, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১২; শাহিন আফ্রিদি ২/১৫, শাদাব খান ২/২২)।

পাকিস্তান: ১৮.১ ওভারে ১০৯/২ রান (ফখর জামান ৫৭*,মোহাম্মদ রিজওয়ান ৩৯, হায়দার আলী ৬*, বাবর আজম ১)।

ফল: পাকিস্তান ৮ উইকেটে জয়ী।

সিরিজে তৃতীয় ও শেষ ম্যাচটি আগামী সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে।

আবারো ব্যাটিং ব্যর্থতা, সিরিজ খোয়াল বাংলাদেশ

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২০ নভেম্বর, ২০২১ | ৫:৪৯ 57 ভিউ
পরাজয়ের বৃত্তেই আটকে আছে বাংলাদেশ দল। বিশ্বকাপে টানা পাঁচ ম্যাচে হেরে শূন্য হাতে দেশে ফেরা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বাধীন দলটি ঘরের মাঠেও জয়ে ফিরতে পারছে না। ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচে হেরে সিরিজ খোয়াল বাংলাদেশ। পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ১২৭/৭ রান করেও বাংলাদেশ হেরে যায় ৪ উইকেটে। শনিবার দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণে ১০৮/৭ রানেই ইনিংস গুটায় স্বাগতিকরা। ১১ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ নিশ্চিত করে পাকিস্তান। শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৫ রানেই ২ ওপেনারের উইকেট হারিয়ে চাপের মধ্যে পড়ে যায় বাংলাদেশ দল। তৃতীয় উইকেটে দলকে খেলায় ফেরান নাজমুল হোসেন শান্ত ও আফিফ হোসেন। এই জুটিতে তারা ৪৬ রান যোগ করেন। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ১০৮/৭ রানেই ইনিংস গুটায় বাংলাদেশ। দলের হয়ে ৩৪ বলে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন শান্ত। এছাড়া ২১ বলে ২০ রান করেন আফিফ। ১২ ও ১১ রান করে করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান। বাকি ৫ ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি। ১০৯ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ১২ রানেই অধিনায়ক বাবর আজমের উইকেট হারায় পাকিস্তান। আগের ম্যাচে ৭ রানে তাসকিন আহমেদের বলে বোল্ড হওয়া এই তারকা পেসার এদিন ১ রানেই মোস্তাফিজুর রহমানের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন। এরপর ফখর জামানকে সঙ্গে নিয়ে ৭৮ বলে ৮৫ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যান ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান। জয়ের জন্য শেষ ২৬ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল মাত্র ১১ রান। খেলার এই অবস্থায় ৪৫ বলে ৩৯ রান করে আউট হন রিজওয়ান। ৫১ বলে ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৭ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন ফখর জামান। সংক্ষিপ্ত স্কোর বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১০৮/৭ (নাজমুল হোসেন শান্ত ৪০, আফিফ হোসেন ২০, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১২; শাহিন আফ্রিদি ২/১৫, শাদাব খান ২/২২)। পাকিস্তান: ১৮.১ ওভারে ১০৯/২ রান (ফখর জামান ৫৭*,মোহাম্মদ রিজওয়ান ৩৯, হায়দার আলী ৬*, বাবর আজম ১)। ফল: পাকিস্তান ৮ উইকেটে জয়ী। সিরিজে তৃতীয় ও শেষ ম্যাচটি আগামী সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ: