আমি বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠস্বর শুনতে পাই


অথর
বইমেলা ডেক্স   সাহিত্য আসর
প্রকাশিত :১৯ জুন ২০২১, ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ | পঠিত : 208 বার
আমি বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠস্বর শুনতে পাই

বিশিষ্ট ফরাসী লেখক, দার্শনিক ও চলচ্চিত্রকার বের্নার্ড-অঁরি লেভি তার বক্তব্যের শুরুতেই বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেছেন, ‘এ বইয়ে আমি বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠস্বর শুনতে পাই।’ বের্নার্ড অঁরি জানান, তিনি ফ্রান্সে বসবাসরত শেষ প্রজন্মের মানুষ, যিনি বঙ্গবন্ধুকে দেখেছেন। এ উদ্যোগ তাকে ভীষণভাবে আবেগাপ্লুত করেছে। এ গ্রন্থের মাধ্যমে একদিকে যেমন মিষ্টতার প্রকাশ অনুভব করতে পেরেছি, তেমনি দৃঢ়তাও ফুটে উঠেছে। তার ওপর যন্ত্রণার অনুভূতি যেমন প্রকাশ পেয়েছে, তেমনি ভবিষ্যতের আশাবাদও ব্যক্ত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর ‘কারাগারের রোজনামচা’ বইয়ের ফরাসী সংস্করণ ‘জার্নাল দে প্রিজন’-এর মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বের্নার্ড অঁরি আরও বলেন, ‘এ গ্রন্থের মাধ্যমে জনমানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধুর মমত্ববোধ আস্বাদন করতে পেরেছি। এটি স্থায়ীভাবে এ গ্রন্থে গ্রথিত হলো। বঙ্গবন্ধু তার বইয়ে যেভাবে ফরাসী বিপ্লবের কথা বলেছেন, ফরাসী জনগোষ্ঠীর সাম্য, মৈত্রী, স্বাধীনতাকে সমর্থন করেছেন, সে একইভাবে ১৯৭১ সালের অক্টোবর মাসে বিশিষ্ট ফরাসী দার্শনিক অঁন্দ্রে মার্লোও বাংলাদেশের স্বাধিকার আন্দোলনে তার সমর্থন প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান বাংলাদেশ সরকারের সাম্প্রতিক পরিপ্রেক্ষিত বিবেচনায় বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে, তার বীজ এ গ্রন্থে আমি দেখতে পাই।’ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্যারিসে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ‘কারাগারের রোজনামচা’ বইয়ের ফরাসী সংস্করণ ‘জার্নাল দে প্রিজন’-এর মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। এ আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। নিউইয়র্ক থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হন তিনি। উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট ফরাসী লেখক, দার্শনিক ও চলচ্চিত্রকার বের্নার্ড-অঁরি লেভি। বিশেষ বক্তা হিসেবে ঢাকা থেকে অংশগ্রহণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় কমিটির মুখ্য সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি মফিদুল হক। অনুষ্ঠানে দূতাবাসে সশরীরে উপস্থিত ছিলেন ফরাসী ভাষায় এ গ্রন্থের অনুবাদক অধ্যাপক ফিলিপে বেনোয়াঁ। বইটির প্রকাশক সংস্থা স্লাাটকিন এ্যান্ড সিএ-এর প্রতিনিধি বার্টান্ড ফাভিউ। কোভিড-১৯ অতিমারীর কারণে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে এ আয়োজনে সশরীরে অংশগ্রহণ করেন অনুবাদক, প্রকাশক সংস্থার প্রতিনিধি এবং দূতাবাসের কর্মকর্তারা। অনলাইনে অংশ নেন ফ্রান্সে অবস্থিত অন্যান্য রাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত, বিশিষ্ট গুণীজনসহ প্রবাসী অনেক বাংলাদেশী। এ গ্রন্থটি শুক্রবার থেকে ফ্রান্সের বিভিন্ন বইয়ের দোকানে পাওয়া যাবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেন, বঙ্গবন্ধু তাঁর জীবনের ১৩টি বছর পাকিস্তানের কারাগারে কাটিয়েছেন, পরিবার-পরিজনকে ছেড়ে কারাগারে অন্তরীণ জীবন-যাপন করেছেন। বঙ্গবন্ধু বিশ্ব সচেতনতা তৈরিতে এক সোচ্চার কণ্ঠস্বর। টেকসই শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় বাংলায় প্রদত্ত বঙ্গবন্ধুর ভাষণের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, মানবজাতির অস্তিত্ব রক্ষায় বিশ্বময় শান্তি প্রতিষ্ঠা অনিবার্য। শান্তির যে বার্তা তিনি প্রচার করে গেছেন, সেটাই বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির মূল মন্ত্র- ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে বৈরিতা নয়’। বঙ্গবন্ধু আজ আমাদের মাঝে নেই কিন্তু তাঁর জীবনদর্শন আমাদের অনুপ্রেরণার প্রধান উৎস। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ জাতিসংঘের সকল ভাষায় অনুবাদ, বঙ্গবন্ধুর নামে ইউনেস্কোতে সৃজনশীল অর্থনীতিতে আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রবর্তন নিঃসন্দেহে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে বিশেষ অবদান রাখবে। এরপর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, এমপি ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে এবং বের্নার্ড-অঁরি লেভি দূতাবাসে যৌথভাবে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন। এ বইয়ের অনুবাদক ফিলিপে বেনোয়াঁ বইটি থেকে উল্লেখযোগ্য উদ্ধৃতি বাংলা, ইংরেজী ও ফরাসী ভাষায় পড়ে শোনান। জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাজনীতির ক্ষেত্রে সহিংসতা বিরোধী ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর লেখনীরও ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং তার অনুবাদে বঙ্গবন্ধুর আবেগকে প্রকাশ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন বলে জানান তিনি। বইটির প্রকাশক সংস্থার প্রতিনিধি বার্টান্ড ফাভিউ জানান, এ উদ্যোগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হতে পেরে তিনি গর্বিত এবং বিশ্বময় ফরাসী ভাষাভাষীদের কাছে এ গ্রন্থ পৌঁছে দিতে নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাবেন। শুভেচ্ছা বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে ফ্রান্সে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন জানান, বঙ্গবন্ধুর কারাগারের রোজনামচা বইটি বঙ্গবন্ধুর পাকিস্তানের কারাগারে বন্দীজীবনের দিনলিপি। তিনি বলেন, কারাব›ীদ অবস্থায় বঙ্গবন্ধু নিজের পরিবার-পরিজনের চেয়েও দেশ, দেশের মানুষের কথা চিন্তা করেছেন। কিভাবে পাকিস্তানী শাসক বাহিনীর অত্যাচার, নিপীড়নের বিরুদ্ধে তিনি সোচ্চার ছিলেন, দেশের মানুষকে মুক্তির আন্দোলনে দিকনির্দেশনা প্রদান করেছিলেন তা বিধৃত হয়েছে এ গ্রন্থে। রাষ্ট্রদূত আশাব্যক্ত করেন যে, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আদর্শ, তাঁর জীবনদর্শন সারা বিশ্বের ফরাসী ভাষাভাষী জনগোষ্ঠীর কাছে পৌঁছে দিতে এ বইটির অনুবাদ বিশেষ অবদান রাখবে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গ্রন্থটির অনুবাদ জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি। ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, মুজিববর্ষে কারাগারের রোজনামচা ফরাসী অনুবাদকৃত গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপনে এক নতুন মাত্রা যোগ করেছে।







No Comments