কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু ভাইয়ের লেখাপড়ার জন্য গার্মেন্টে চাকরি নেন দুবোন - ডোনেট বাংলাদেশ

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেন দরিদ্র পরিবারের সন্তান ছিলেন। বাবা শুকুর আলী তার লেখাপড়ার খরচ যোগাতে ব্যর্থ হলে গার্মেন্টে চাকরি নিয়েছিলেন তার দুবোন শিউলি ও শ্যামলি।

রোববার কুষ্টিয়ার কুমারখালীর বাঁশগ্রামে ড. সেলিমের গ্রামের বাড়িতে গেলে দেখা যায়, তিন রুমের একটি একতলা বাড়ি। নির্মাণকাজ এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি। ঘরের আসবাব বলতে তেমন কিছুই নেই। কথা হয় বোন শিউলির সঙ্গে। তাদের মা বেঁচে নেই। ভাইয়ের মৃত্যু শোকে পাগলপ্রায় শিউলি। একটু কথা বলেই হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন তিনি। শিউলি বলেন, আমার মেধাবী ভাইটাকে তারা মানসিক নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে। কী দোষ ছিল আমার ভাইয়ের।

শিউলি জানান, তারা পাঁচ ভাই-বোন,

বড় ভাই গার্মেন্টে চাকরি করেন। তারপর সেলিম। এরপর তারা তিন বোন। সেলিম ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াকালে শেষ দুবছর তার বাবা শুকুর আলী ঘরের কাঁসার ঘটিবাটি পর্যন্ত বিক্রি করে দিয়েছিলেন। পরে শিউলি ও শ্যামলি ঢাকা গার্মেন্ট ফ্যাক্টরিতে চাকরি নেন ভাইয়ের লেখাপড়ার খরচ জোগাতে। ২০১১ সালে তাদের মা মারা গেলে সংসার এলোমেলো হয়ে যায়। সে সময় তার ভাই সেলিম আগলে রেখেছিলেন সবাইকে। সেলিম চাকরি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাদের গার্মেন্ট থেকে চাকরি ছাড়িয়ে বাড়িতে নিয়ে এসে বিয়ে দেন। সেলিমের বাবা শুকুর আলী বর্তমানে খুবই অসুস্থ। তার একটি কিডনি ড্যামেজ, আরেকটির অবস্থাও ভালো না। সব চিকিৎসা ব্যয় বহন করত সেলিম। ছেলেকে হারিয়ে দুচোখে অন্ধকার দেখছেন তার

বাবা।

শিউলি বলেন, সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, আমার ভাইকে রুমে নিয়ে ৪৫ মিনিট আটকে রাখা হয়েছিল। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, তাকে নিয়ে কক্ষে প্রবেশের ফুটেজ আছে, কিন্তু বের হওয়ার ফুটেজ কোথায় গেল? আসলে আমার ভাইকে শুধু মানসিক নয়, শারীরিক নির্যাতনও করা হয়েছে।

৩০ নভেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজানের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসের রাস্তা থেকে ড. সেলিমকে জেরা করা শুরু করে। পরে তারা শিক্ষককে অনুসরণ করে তার ব্যক্তিগত কক্ষে (তড়িৎ প্রকৌশল ভবন) প্রবেশ করে।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, তারা আনুমানিক আধা ঘণ্টা ওই শিক্ষকের কক্ষে অবস্থান করে। পরে শিক্ষক ক্যাম্পাসসংলগ্ন বাসায় যান। সেখানে দুপুর ২টার দিকে টয়লেটে

তিনি অচেতন হয়ে পড়লে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অভিযোগ ওঠে, শিক্ষকের কক্ষে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাকে লাঞ্ছিত করেন এবং মানসিক নির্যাতন চালান।

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেন দরিদ্র পরিবারের সন্তান ছিলেন। বাবা শুকুর আলী তার লেখাপড়ার খরচ যোগাতে ব্যর্থ হলে গার্মেন্টে চাকরি নিয়েছিলেন তার দুবোন শিউলি ও শ্যামলি।

রোববার কুষ্টিয়ার কুমারখালীর বাঁশগ্রামে ড. সেলিমের গ্রামের বাড়িতে গেলে দেখা যায়, তিন রুমের একটি একতলা বাড়ি। নির্মাণকাজ এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি। ঘরের আসবাব বলতে তেমন কিছুই নেই। কথা হয় বোন শিউলির সঙ্গে। তাদের মা বেঁচে নেই। ভাইয়ের মৃত্যু শোকে পাগলপ্রায় শিউলি। একটু কথা বলেই হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন তিনি। শিউলি বলেন, আমার মেধাবী ভাইটাকে তারা মানসিক নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে। কী দোষ ছিল আমার ভাইয়ের।

শিউলি জানান, তারা পাঁচ ভাই-বোন,

বড় ভাই গার্মেন্টে চাকরি করেন। তারপর সেলিম। এরপর তারা তিন বোন। সেলিম ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াকালে শেষ দুবছর তার বাবা শুকুর আলী ঘরের কাঁসার ঘটিবাটি পর্যন্ত বিক্রি করে দিয়েছিলেন। পরে শিউলি ও শ্যামলি ঢাকা গার্মেন্ট ফ্যাক্টরিতে চাকরি নেন ভাইয়ের লেখাপড়ার খরচ জোগাতে। ২০১১ সালে তাদের মা মারা গেলে সংসার এলোমেলো হয়ে যায়। সে সময় তার ভাই সেলিম আগলে রেখেছিলেন সবাইকে। সেলিম চাকরি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাদের গার্মেন্ট থেকে চাকরি ছাড়িয়ে বাড়িতে নিয়ে এসে বিয়ে দেন। সেলিমের বাবা শুকুর আলী বর্তমানে খুবই অসুস্থ। তার একটি কিডনি ড্যামেজ, আরেকটির অবস্থাও ভালো না। সব চিকিৎসা ব্যয় বহন করত সেলিম। ছেলেকে হারিয়ে দুচোখে অন্ধকার দেখছেন তার

বাবা।

শিউলি বলেন, সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, আমার ভাইকে রুমে নিয়ে ৪৫ মিনিট আটকে রাখা হয়েছিল। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, তাকে নিয়ে কক্ষে প্রবেশের ফুটেজ আছে, কিন্তু বের হওয়ার ফুটেজ কোথায় গেল? আসলে আমার ভাইকে শুধু মানসিক নয়, শারীরিক নির্যাতনও করা হয়েছে।

৩০ নভেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজানের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসের রাস্তা থেকে ড. সেলিমকে জেরা করা শুরু করে। পরে তারা শিক্ষককে অনুসরণ করে তার ব্যক্তিগত কক্ষে (তড়িৎ প্রকৌশল ভবন) প্রবেশ করে।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, তারা আনুমানিক আধা ঘণ্টা ওই শিক্ষকের কক্ষে অবস্থান করে। পরে শিক্ষক ক্যাম্পাসসংলগ্ন বাসায় যান। সেখানে দুপুর ২টার দিকে টয়লেটে

তিনি অচেতন হয়ে পড়লে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অভিযোগ ওঠে, শিক্ষকের কক্ষে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাকে লাঞ্ছিত করেন এবং মানসিক নির্যাতন চালান।

কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু ভাইয়ের লেখাপড়ার জন্য গার্মেন্টে চাকরি নেন দুবোন

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৬ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৭:৫৮ 203 ভিউ
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেন দরিদ্র পরিবারের সন্তান ছিলেন। বাবা শুকুর আলী তার লেখাপড়ার খরচ যোগাতে ব্যর্থ হলে গার্মেন্টে চাকরি নিয়েছিলেন তার দুবোন শিউলি ও শ্যামলি। রোববার কুষ্টিয়ার কুমারখালীর বাঁশগ্রামে ড. সেলিমের গ্রামের বাড়িতে গেলে দেখা যায়, তিন রুমের একটি একতলা বাড়ি। নির্মাণকাজ এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি। ঘরের আসবাব বলতে তেমন কিছুই নেই। কথা হয় বোন শিউলির সঙ্গে। তাদের মা বেঁচে নেই। ভাইয়ের মৃত্যু শোকে পাগলপ্রায় শিউলি। একটু কথা বলেই হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন তিনি। শিউলি বলেন, আমার মেধাবী ভাইটাকে তারা মানসিক নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে। কী দোষ ছিল আমার ভাইয়ের। শিউলি জানান, তারা পাঁচ ভাই-বোন,

বড় ভাই গার্মেন্টে চাকরি করেন। তারপর সেলিম। এরপর তারা তিন বোন। সেলিম ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াকালে শেষ দুবছর তার বাবা শুকুর আলী ঘরের কাঁসার ঘটিবাটি পর্যন্ত বিক্রি করে দিয়েছিলেন। পরে শিউলি ও শ্যামলি ঢাকা গার্মেন্ট ফ্যাক্টরিতে চাকরি নেন ভাইয়ের লেখাপড়ার খরচ জোগাতে। ২০১১ সালে তাদের মা মারা গেলে সংসার এলোমেলো হয়ে যায়। সে সময় তার ভাই সেলিম আগলে রেখেছিলেন সবাইকে। সেলিম চাকরি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাদের গার্মেন্ট থেকে চাকরি ছাড়িয়ে বাড়িতে নিয়ে এসে বিয়ে দেন। সেলিমের বাবা শুকুর আলী বর্তমানে খুবই অসুস্থ। তার একটি কিডনি ড্যামেজ, আরেকটির অবস্থাও ভালো না। সব চিকিৎসা ব্যয় বহন করত সেলিম। ছেলেকে হারিয়ে দুচোখে অন্ধকার দেখছেন তার

বাবা। শিউলি বলেন, সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, আমার ভাইকে রুমে নিয়ে ৪৫ মিনিট আটকে রাখা হয়েছিল। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, তাকে নিয়ে কক্ষে প্রবেশের ফুটেজ আছে, কিন্তু বের হওয়ার ফুটেজ কোথায় গেল? আসলে আমার ভাইকে শুধু মানসিক নয়, শারীরিক নির্যাতনও করা হয়েছে। ৩০ নভেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজানের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসের রাস্তা থেকে ড. সেলিমকে জেরা করা শুরু করে। পরে তারা শিক্ষককে অনুসরণ করে তার ব্যক্তিগত কক্ষে (তড়িৎ প্রকৌশল ভবন) প্রবেশ করে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, তারা আনুমানিক আধা ঘণ্টা ওই শিক্ষকের কক্ষে অবস্থান করে। পরে শিক্ষক ক্যাম্পাসসংলগ্ন বাসায় যান। সেখানে দুপুর ২টার দিকে টয়লেটে

তিনি অচেতন হয়ে পড়লে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অভিযোগ ওঠে, শিক্ষকের কক্ষে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাকে লাঞ্ছিত করেন এবং মানসিক নির্যাতন চালান।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
উত্তেজনার মধ্যে গোপনে সিআইএ পরিচালকের ইউক্রেন সফর মুসলিম শাসিত যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম শহর মিশিগানের হ্যামট্রামক এবার প্ল্যাকার্ড হাতে আন্দোলনে শাবি শিক্ষকরা আগামী ১৫ দিন তেলের দাম অপরিবর্তিত থাকবে: বাণিজ্যমন্ত্রী কাল থেকে উপজেলায় যাচ্ছে ওএমএসের চাল-আটা টেনিসকে বিদায় জানাচ্ছেন সানিয়া মির্জা বাংলাদেশের বোলিং কোচ হতে আগ্রহী শন টেইট দল বহিষ্কার করলেও কর্মী হিসেবে কাজ করে যাব: তৈমুর বিজেপিতে যোগ দিয়ে আলোচনায় অপর্ণা ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্তে চাঞ্চল্যকর তথ্য সিদ্ধিরগঞ্জে সেনাসদস্য হত্যায় ৩ ছিনতাইকারী গ্রেফতার ডাব পাড়া নিয়ে মান্নানকে পিটিয়ে হত্যায় বাবা-ছেলের যাবজ্জীবন তালেবানকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রত্যাশা পূরণ করতে হবে: চীন দোষ থাকলে সরকার যে সিদ্ধান্ত নেবে, তাই মেনে নেব: উপাচার্য মধুখালীতে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক মধুখালীতে কোভিড পরবর্তী করনীয় বিষয়ক প্রশিক্ষণ রাজশাহীতে অহরহ ছিনতাইয়ের ঘটনায় শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ ডুয়ানি’র এডহক কমিটি ঘোষণা CU Chhatra League clash,wounded 5 leader একদিনে আরও ৩০ লাখ করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ৮ হাজার