ক্রিকেট দিয়ে গেমসের পর্দা নামছে আজ


অথর
ক্রীড়া অঙ্গন সংবাদদাতা   ডোনেট বাংলাদেশ
প্রকাশিত :১০ এপ্রিল ২০২১, ৮:৫৩ পূর্বাহ্ণ | পঠিত : 149 বার
ক্রিকেট দিয়ে গেমসের পর্দা নামছে আজ

বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপির শ্রেষ্ঠত্বের মধ্য দিয়ে আজ শনিবার শেষ হচ্ছে বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমস। ৩১ ডিসিপ্লিনে ৩৭৮ স্বর্ণের মধ্যে শুক্রবার রাত পর্যন্ত আনসার ১২৫ স্বর্ণসহ ২৬২ পদক জিতে সবাইকে ছাড়িয়ে শ্রেষ্ঠত্বের পথে এগিয়ে রয়েছে। ১০৬ স্বর্ণসহ ২৭৭ পদক জিতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। ৬৩ স্বর্ণসহ ১২৬ পদক নিয়ে বাংলাদেশ নৌবাাহিনী অবস্থান তিনে। ২০০২ এবং ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ গেমসেও সেরা হয়েছিল আনসার। দশ দিনের গেমসের পর্দা নামছে আজ। তবে আজ একটি খেলা অনুষ্ঠিত হবে। সেটি পুরুষ ক্রিকেট। বরিশালে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়ামে স্বর্ণপদক জয়ের লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে বরেন্দ্র নর্থ জোন ও জাহাঙ্গীরাবাদ সেন্ট্রাল জোন। ম্যাচ শুরু হবে সকাল ৯টায়। চলমান করোনা মহামারীর জন্য সমাপনী অনুষ্ঠান সংক্ষিপ্ত করেছে আয়োজক বাংলাদেশ অলিম্পিক এ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)। বিকেল সাড়ে পাঁচটায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের গেট উন্মুক্ত করা হবে। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় পবিত্র কোরান তেলওয়াতের মধ্য দিয়ে শুরু হবে অনুষ্ঠান। এরপর জাতীয় সঙ্গীত বেজে উঠবে। জাতীয় সঙ্গীতের পরপরই কয়েকটি সংক্ষিপ্ত বক্তব্য। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন। বক্তব্য রাখবেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। বিওএর সভাপতি ও সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সভাপতির বক্তব্য রাখবেন। স্বাগত বক্তব্য দেবেন বিওএর মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। প্রথম পর্বের এই অনুষ্ঠানের দৈর্ঘ্য ৩০ মিনিট। দ্বিতীয় পর্বের দৈর্ঘ্যও তাই। সন্ধ্যা ৭টায় ১৫ মিনিটের একটি ভিজুয়াল প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ১০ দিনের গেমসের চিত্র তুলে ধরা হবে। সোয়া ৭টায় কয়েক মিনিটের সংক্ষিপ্ত লেজার শো হবে। লেজার শো শেষে গেমসের মশাল নেভানোর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটবে। বিওএর সহ-সভাপতি ও গেমস স্টিয়ারিং কমিটির চেয়ারম্যান শেখ বশির আহমেদ বলেন, ‘আমরা গেমসের সুন্দর সমাপ্তির অপেক্ষায়। উদ্বোধনটা জাঁকজমক হলেও চলমান করোনা প্রেক্ষাপটে আমরা সমাপনী অনুষ্ঠান খুবই স্বল্প আকারে করছি। সাংস্কৃতিক পর্ব সেভাবে থাকছে না।’ গত ১ এপ্রিল সন্ধ্যা সাতটা ৪১ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমসের শুভ উদ্বোধন করেছিলেন। বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা বলেছেন, ‘এটা অনেক চ্যালেঞ্জিং ছিল। তারপরও ইনশাল্লাহ আল্লাহর রহমতে আমরা গেমসটাকে সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছি। প্রায় ৫ হাজার তিনশ খেলোয়াড়কে নিয়ে বাকি কর্মকর্তা ও টেকনিক্যাল কর্মকর্তাদের নিয়ে প্রায় ৮ হাজার জনকে নিয়ে এই গেমসটা শুরু করেছি এবং শেষ পর্যন্ত শেষ করতে সক্ষম হয়েছি। কোন ঝামেলা হয়নি। আর অনেক গেমস থেকে অনেক ভাল খেলোয়াড় বের হয়ে এসেছে এবং অনেক রেকর্ড এবার আমরা তৈরি করেছি, যেটা সত্যি আমাদের জন্য বড় প্রাপ্তি। যুব গেমসের মাধ্যমে যে খেলোয়াড়রা বের হয়ে এসেছেন, তারাই দেশকে প্রতিনিধিত্ব করছেন। এই গেমসের মাধ্যমে যেসব খেলোয়াড় বের হয়ে এসেছেন, ইনশাআল্লাহ তারাই আগামীতে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবেন বলে আমি আশাবাদী।’ শুক্রবার গেমসে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে বাংলাদেশ আনসার মাত্র ১ পয়েন্টের ব্যবধানে প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ পুলিকে হারিয়ে স্বর্ণপদক জেতে। খেলার স্কোরলাইন ছিল ১৫-১৪। পুলিশ দলকে রৌপ্যপদক নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়। এছাড়া পুরুষ কাবাডির ফাইনালে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ২৪-২২ পয়েন্টে বাংলাদেশ বাহিনী বাহিনীকে হারিয়ে স্বর্ণ জেতে। পুরুষ হকিতে সেনাবাহিনী শুট আউটে ৬-৫ (নির্ধারিত সময়ের খেলা ৩-৩ গোলে ড্র ছিল) নৌবাহিনীকে হারিয়ে, মহিলা হকিতে ঝিনাইদহকে ১-০ গোলে হারিয়ে নড়াইল জেলা দল স্বর্ণ জেতে। ভারোত্তোলনে ৯টি রেকর্ড হয়। নারীদের ৮৭ কেজিতে সেনাবাহিনীর তানিয়া খাতুন ৩টি, উর্ধ-৮৭ কেজিতে আনসারের সোয়াইবা রোকাইয়া ১টি, পুরুষদের উর্ধ-১০৯ কেজিতে সেনাবাহিনীর ফরহাদ আলী ৩টি ও সেনাবাহিনীর আব্দুল্লাহ আল মোমিন ২টি রেকর্ড গড়েন। রোইংয়ে দুই বিভাগেই সেরা হয় কেরানীগঞ্জ। জুডোতে সেরা হয় আনসার। উশুতে ১৬ সোনা জিতে সেরা হয় আনসার।







No Comments