দুবাই যাওয়ার ভিসা পেয়ে আনন্দে মাতোয়ারা নিশো-মেহজাবীন - ডোনেট বাংলাদেশ

মফস্বলের অল্পশিক্ষিত কিংবা অক্ষর জ্ঞানহীন মানুষের বড় একটি অংশ উপার্জনের জন্য বিদেশযাত্রাকে ইতিবাচকভাবে দেখেন। তাই কেউ যখন বিদেশে যায় পাড়াপ্রতিবেশীরা সেই লোককে বাহবা দিতেন থাকেন। কিন্তু যদি স্বামী-স্ত্রী দুজনই শ্রমিক হিসেবে বিদেশে যান, তাহলে তো ব্যাপক আলোড়ন তৈরি হয় সেই এলাকায়।

এরকমই একটি ঘটনা ঘটেছে সদ্য বিবাহিত মিজান ও জবা দম্পতির। ঘটনাক্রমে দু’জনেই একসঙ্গে দুবাই যাওয়ার ভিসা পান কোনো এক এজেন্সির মাধ্যমে। আর এটি পেয়ে বাঁধভাঙা আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে যান দম্পতি। এমনই এক ভিন্ন ট্র্যাকের গল্পে ‘ঢাকা টু দুবাই’ নামের নাটকটিতে অভিনয় করলেন আফরান নিশো ও মেহজাবীন চৌধুরী।

নাটকে একজনের নাম মিজান অন্যজন জবা। নাটকটি নির্মাণ করেছেন মহিদুল মহিম। চিত্রনাট্যও তারই। সিএমভির প্রযোজনায় সম্প্রতি বিশেষ এ নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে।

এ নাটক প্রসঙ্গে পরিচালক মহিম বলেন, গল্পটা মজার তবে বার্তাটি বেদনার। গ্রামের সাধারণ দুটো মানুষের বিদেশযাত্রা নিয়ে ঘটে যাওয়া নানা ঘটনা ও ব্যর্থতার করুণ চিত্র তুলে আনবার চেষ্টা করেছি আমরা। যথারীতি চরিত্র দুটিতে নিশো ভাই ও মেহজাবীন আপু অসাধারণ অভিনয় করেছেন। আমরা চেয়েছি দুবাই যাত্রা নিয়ে আনন্দ ও বেদনার গল্পের সঙ্গে একটি সামাজিক বার্তা দিতে।

নাটকটির আরেকটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন শহীদুল আলম সাচ্চু। শিগগিরই নাটকটি উন্মুক্ত হবে সিএমভির ইউটিউব চ্যানেলে।

মফস্বলের অল্পশিক্ষিত কিংবা অক্ষর জ্ঞানহীন মানুষের বড় একটি অংশ উপার্জনের জন্য বিদেশযাত্রাকে ইতিবাচকভাবে দেখেন। তাই কেউ যখন বিদেশে যায় পাড়াপ্রতিবেশীরা সেই লোককে বাহবা দিতেন থাকেন। কিন্তু যদি স্বামী-স্ত্রী দুজনই শ্রমিক হিসেবে বিদেশে যান, তাহলে তো ব্যাপক আলোড়ন তৈরি হয় সেই এলাকায়।

এরকমই একটি ঘটনা ঘটেছে সদ্য বিবাহিত মিজান ও জবা দম্পতির। ঘটনাক্রমে দু’জনেই একসঙ্গে দুবাই যাওয়ার ভিসা পান কোনো এক এজেন্সির মাধ্যমে। আর এটি পেয়ে বাঁধভাঙা আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে যান দম্পতি। এমনই এক ভিন্ন ট্র্যাকের গল্পে ‘ঢাকা টু দুবাই’ নামের নাটকটিতে অভিনয় করলেন আফরান নিশো ও মেহজাবীন চৌধুরী।

নাটকে একজনের নাম মিজান অন্যজন জবা। নাটকটি নির্মাণ করেছেন মহিদুল মহিম। চিত্রনাট্যও তারই। সিএমভির প্রযোজনায় সম্প্রতি বিশেষ এ নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে।

এ নাটক প্রসঙ্গে পরিচালক মহিম বলেন, গল্পটা মজার তবে বার্তাটি বেদনার। গ্রামের সাধারণ দুটো মানুষের বিদেশযাত্রা নিয়ে ঘটে যাওয়া নানা ঘটনা ও ব্যর্থতার করুণ চিত্র তুলে আনবার চেষ্টা করেছি আমরা। যথারীতি চরিত্র দুটিতে নিশো ভাই ও মেহজাবীন আপু অসাধারণ অভিনয় করেছেন। আমরা চেয়েছি দুবাই যাত্রা নিয়ে আনন্দ ও বেদনার গল্পের সঙ্গে একটি সামাজিক বার্তা দিতে।

নাটকটির আরেকটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন শহীদুল আলম সাচ্চু। শিগগিরই নাটকটি উন্মুক্ত হবে সিএমভির ইউটিউব চ্যানেলে।

দুবাই যাওয়ার ভিসা পেয়ে আনন্দে মাতোয়ারা নিশো-মেহজাবীন

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৮ নভেম্বর, ২০২১ | ৮:১৪ 56 ভিউ
মফস্বলের অল্পশিক্ষিত কিংবা অক্ষর জ্ঞানহীন মানুষের বড় একটি অংশ উপার্জনের জন্য বিদেশযাত্রাকে ইতিবাচকভাবে দেখেন। তাই কেউ যখন বিদেশে যায় পাড়াপ্রতিবেশীরা সেই লোককে বাহবা দিতেন থাকেন। কিন্তু যদি স্বামী-স্ত্রী দুজনই শ্রমিক হিসেবে বিদেশে যান, তাহলে তো ব্যাপক আলোড়ন তৈরি হয় সেই এলাকায়। এরকমই একটি ঘটনা ঘটেছে সদ্য বিবাহিত মিজান ও জবা দম্পতির। ঘটনাক্রমে দু’জনেই একসঙ্গে দুবাই যাওয়ার ভিসা পান কোনো এক এজেন্সির মাধ্যমে। আর এটি পেয়ে বাঁধভাঙা আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে যান দম্পতি। এমনই এক ভিন্ন ট্র্যাকের গল্পে ‘ঢাকা টু দুবাই’ নামের নাটকটিতে অভিনয় করলেন আফরান নিশো ও মেহজাবীন চৌধুরী। নাটকে একজনের নাম মিজান অন্যজন জবা। নাটকটি নির্মাণ করেছেন মহিদুল মহিম। চিত্রনাট্যও তারই। সিএমভির প্রযোজনায় সম্প্রতি বিশেষ এ নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে। এ নাটক প্রসঙ্গে পরিচালক মহিম বলেন, গল্পটা মজার তবে বার্তাটি বেদনার। গ্রামের সাধারণ দুটো মানুষের বিদেশযাত্রা নিয়ে ঘটে যাওয়া নানা ঘটনা ও ব্যর্থতার করুণ চিত্র তুলে আনবার চেষ্টা করেছি আমরা। যথারীতি চরিত্র দুটিতে নিশো ভাই ও মেহজাবীন আপু অসাধারণ অভিনয় করেছেন। আমরা চেয়েছি দুবাই যাত্রা নিয়ে আনন্দ ও বেদনার গল্পের সঙ্গে একটি সামাজিক বার্তা দিতে। নাটকটির আরেকটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন শহীদুল আলম সাচ্চু। শিগগিরই নাটকটি উন্মুক্ত হবে সিএমভির ইউটিউব চ্যানেলে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ: