নারায়ণগঞ্জে মেয়র আইভীকে ৭ দিনের আলটিমেটাম - ডোনেট বাংলাদেশ

আগামী ৭ দিনের মধ্যে দেবোত্তর সম্পত্তি না ছাড়লে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন সনাতন ধর্মালম্বীরা। নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কস্থ প্রেস ক্লাব ভবনের সামনে শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) বিকালে এক প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা ও বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ শাখার উদ্যোগে ওই প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ পুজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি দীপক কুমার সাহা বলেন, লক্ষীনারায়ণ আখড়ার নামে নারায়ণগঞ্জের নামকরণ হয়েছে। সেই আখড়ার-ই জিউস পুকুর। অথচ সেই পুকুরটি ৬টি দলিলের মাধ্যমে মেয়র আইভী ও তার পরিবারের সদস্যরা দখল করে রেখেছেন। আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছি, কিন্তু মেয়র আইভী শুনছেন না। আমি আশা করবো খুব শীঘ্রই আমাদের জমি ফিরিয়ে দিবেন। আমরা ৭ দিনের আল্টিমেটাম দিলাম, তা না হলে ৭ দিন পর সাড়া বাংলাদেশে এক দিনে এক যোগে আন্দোলন করবো। ব্যাপাক আন্দোলন কর্মসূচির ঘোষণা দিবো।

নারায়ণগঞ্জ পুজা উৎযাপন কমিটির নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সাধারণ সম্পাদক শিপন কুমার শিখন বলেন, আমাদের আন্দোলনে একাত্বতা প্রকাশ করে বিভিন্ন ধর্মের অনেকেই এসেছে। তাদের বিরুদ্ধে আপনি মামলা দেননি। মামলা দিয়েছেন, খোকন সাহার নামে। তার মানে কি, তিনি কি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক না, নাকি তিনি হিন্দু বলে। আপনি যে সাম্প্রদায়িক এটার প্রমাণ এর মধ্যে দিয়েই রেখেছেন। কারা সাম্প্রদায়িক? যারা দেবোত্তর সম্পদ, মন্দির-মসজিদের সম্পত্তি খায়, তারাই সাম্প্রদায়িক। এই সাম্প্রদায়িক লোক আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কোন অবস্থাতেই যেন মনোনয়ন না পায়, সেই বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোড় দাবি করবো। আপনি উন্নয়নের রোল মডেল, এই সাম্প্রদায়িক ব্যক্তির কারণে আপনার ভাবমূর্তি যাতে নষ্ট না হয়, আপনি সেই বিষয়ে খেয়াল রাখবেন।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি দীপক কুমার সাহার সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ দাস, মহানগর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি লিটন পাল, সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার শিপন. নারায়ণগঞ্জ মহানগরের পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অরুণ কুমার, পরিবেশ প্রকৃতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক সুজিত সরকার প্রমুখ।

এদিকে এর আগে দেওভোগের ঐতিহ্যবাহী জিউস পুকুর তথা দেবোত্তর সম্পত্তিকে ইস্যু করে আন্দোলনকে নোংরা রাজনৈতিক খেলা বলে মন্তব্য করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর।

তিনি বলেন, জিউস পুকুরের মালিকানার সাথে তার কোনো সম্পর্ক নেই। ব্যক্তি আইভীর সাথে এর কোনো সম্পৃক্ততা নেই। আগামী সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের একটি অংশ এই ইস্যুতে আন্দোলন।

আগামী ৭ দিনের মধ্যে দেবোত্তর সম্পত্তি না ছাড়লে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন সনাতন ধর্মালম্বীরা। নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কস্থ প্রেস ক্লাব ভবনের সামনে শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) বিকালে এক প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা ও বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ শাখার উদ্যোগে ওই প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ পুজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি দীপক কুমার সাহা বলেন, লক্ষীনারায়ণ আখড়ার নামে নারায়ণগঞ্জের নামকরণ হয়েছে। সেই আখড়ার-ই জিউস পুকুর। অথচ সেই পুকুরটি ৬টি দলিলের মাধ্যমে মেয়র আইভী ও তার পরিবারের সদস্যরা দখল করে রেখেছেন। আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছি, কিন্তু মেয়র আইভী শুনছেন না। আমি আশা করবো খুব শীঘ্রই আমাদের জমি ফিরিয়ে দিবেন। আমরা ৭ দিনের আল্টিমেটাম দিলাম, তা না হলে ৭ দিন পর সাড়া বাংলাদেশে এক দিনে এক যোগে আন্দোলন করবো। ব্যাপাক আন্দোলন কর্মসূচির ঘোষণা দিবো।

নারায়ণগঞ্জ পুজা উৎযাপন কমিটির নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সাধারণ সম্পাদক শিপন কুমার শিখন বলেন, আমাদের আন্দোলনে একাত্বতা প্রকাশ করে বিভিন্ন ধর্মের অনেকেই এসেছে। তাদের বিরুদ্ধে আপনি মামলা দেননি। মামলা দিয়েছেন, খোকন সাহার নামে। তার মানে কি, তিনি কি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক না, নাকি তিনি হিন্দু বলে। আপনি যে সাম্প্রদায়িক এটার প্রমাণ এর মধ্যে দিয়েই রেখেছেন। কারা সাম্প্রদায়িক? যারা দেবোত্তর সম্পদ, মন্দির-মসজিদের সম্পত্তি খায়, তারাই সাম্প্রদায়িক। এই সাম্প্রদায়িক লোক আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কোন অবস্থাতেই যেন মনোনয়ন না পায়, সেই বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোড় দাবি করবো। আপনি উন্নয়নের রোল মডেল, এই সাম্প্রদায়িক ব্যক্তির কারণে আপনার ভাবমূর্তি যাতে নষ্ট না হয়, আপনি সেই বিষয়ে খেয়াল রাখবেন।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি দীপক কুমার সাহার সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ দাস, মহানগর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি লিটন পাল, সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার শিপন. নারায়ণগঞ্জ মহানগরের পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অরুণ কুমার, পরিবেশ প্রকৃতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক সুজিত সরকার প্রমুখ।

এদিকে এর আগে দেওভোগের ঐতিহ্যবাহী জিউস পুকুর তথা দেবোত্তর সম্পত্তিকে ইস্যু করে আন্দোলনকে নোংরা রাজনৈতিক খেলা বলে মন্তব্য করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর।

তিনি বলেন, জিউস পুকুরের মালিকানার সাথে তার কোনো সম্পর্ক নেই। ব্যক্তি আইভীর সাথে এর কোনো সম্পৃক্ততা নেই। আগামী সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের একটি অংশ এই ইস্যুতে আন্দোলন।

নারায়ণগঞ্জে মেয়র আইভীকে ৭ দিনের আলটিমেটাম

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২০ নভেম্বর, ২০২১ | ৯:৫৫ 75 ভিউ
আগামী ৭ দিনের মধ্যে দেবোত্তর সম্পত্তি না ছাড়লে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন সনাতন ধর্মালম্বীরা। নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কস্থ প্রেস ক্লাব ভবনের সামনে শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) বিকালে এক প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা ও বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ শাখার উদ্যোগে ওই প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। নারায়ণগঞ্জ পুজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি দীপক কুমার সাহা বলেন, লক্ষীনারায়ণ আখড়ার নামে নারায়ণগঞ্জের নামকরণ হয়েছে। সেই আখড়ার-ই জিউস পুকুর। অথচ সেই পুকুরটি ৬টি দলিলের মাধ্যমে মেয়র আইভী ও তার পরিবারের সদস্যরা দখল করে রেখেছেন। আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছি, কিন্তু মেয়র আইভী শুনছেন না। আমি আশা করবো খুব শীঘ্রই আমাদের জমি ফিরিয়ে দিবেন। আমরা ৭ দিনের আল্টিমেটাম দিলাম, তা না হলে ৭ দিন পর সাড়া বাংলাদেশে এক দিনে এক যোগে আন্দোলন করবো। ব্যাপাক আন্দোলন কর্মসূচির ঘোষণা দিবো। নারায়ণগঞ্জ পুজা উৎযাপন কমিটির নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সাধারণ সম্পাদক শিপন কুমার শিখন বলেন, আমাদের আন্দোলনে একাত্বতা প্রকাশ করে বিভিন্ন ধর্মের অনেকেই এসেছে। তাদের বিরুদ্ধে আপনি মামলা দেননি। মামলা দিয়েছেন, খোকন সাহার নামে। তার মানে কি, তিনি কি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক না, নাকি তিনি হিন্দু বলে। আপনি যে সাম্প্রদায়িক এটার প্রমাণ এর মধ্যে দিয়েই রেখেছেন। কারা সাম্প্রদায়িক? যারা দেবোত্তর সম্পদ, মন্দির-মসজিদের সম্পত্তি খায়, তারাই সাম্প্রদায়িক। এই সাম্প্রদায়িক লোক আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কোন অবস্থাতেই যেন মনোনয়ন না পায়, সেই বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোড় দাবি করবো। আপনি উন্নয়নের রোল মডেল, এই সাম্প্রদায়িক ব্যক্তির কারণে আপনার ভাবমূর্তি যাতে নষ্ট না হয়, আপনি সেই বিষয়ে খেয়াল রাখবেন। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি দীপক কুমার সাহার সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ দাস, মহানগর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি লিটন পাল, সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার শিপন. নারায়ণগঞ্জ মহানগরের পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অরুণ কুমার, পরিবেশ প্রকৃতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক সুজিত সরকার প্রমুখ। এদিকে এর আগে দেওভোগের ঐতিহ্যবাহী জিউস পুকুর তথা দেবোত্তর সম্পত্তিকে ইস্যু করে আন্দোলনকে নোংরা রাজনৈতিক খেলা বলে মন্তব্য করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর। তিনি বলেন, জিউস পুকুরের মালিকানার সাথে তার কোনো সম্পর্ক নেই। ব্যক্তি আইভীর সাথে এর কোনো সম্পৃক্ততা নেই। আগামী সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের একটি অংশ এই ইস্যুতে আন্দোলন।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ: