পদ্মা সেতুতে দক্ষিণের জনপদে সমৃদ্ধির জয়গান – ডোনেট বাংলাদেশ

পদ্মা সেতুতে দক্ষিণের জনপদে সমৃদ্ধির জয়গান

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২২ জুন, ২০২২ | ৮:০৭ 11 ভিউ
একটি সেতুর জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে দীর্ঘ ২৫ বছর। সেই অপেক্ষার অবসান হতে যাচ্ছে আগামী ২৫ জুন। আর মাত্র তিন দিন পর বহুল প্রতীক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিন। এরপরই যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে স্বপ্নের এই সেতুটি। পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে চলছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জোর প্রস্তুতি। একইসঙ্গে চলছে স্বপ্ন বাস্তবায়নের শেষ মুহূর্তের ক্ষণগণনা। যার সঙ্গে মিশে আছে বহু স্বপ্ন, আশা, আকাঙ্খা আর সমৃদ্ধির প্রত্যাশা। ১৯৯৮ সালে যমুনা নদীর উপর বঙ্গবন্ধু সেতু চালু হয়। তখনই তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা নদীতে একটি সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেন। বলা হয়, বঙ্গবন্ধু সেতুই পদ্মা সেতু নির্মাণের আশা জাগিয়েছিল। যমুনা

নদীর উপর বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণের ফলে উত্তরবঙ্গ থেকে মঙ্গা নামটি মুছে গেছে। অর্থনৈতিকভাবে ঘুরে দাড়িয়েছে দেশের উত্তরাঞ্চলের মঙ্গা কবলিত জনপদ। একইভাবে খরস্রোতা পদ্মা নদীর উপর দীর্ঘ অপেক্ষা ও প্রতীক্ষার ফসল স্বপ্নের পদ্মা সেতুটি চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলেরও ব্যাপক আর্থ সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে, বদলে যাবে তাদের জীবনযাত্রার মান, সমৃদ্ধ হবে দক্ষিণের জনপদ। এ প্রত্যাশা নিয়েই অপেক্ষার প্রহর গুনছেন এই অঞ্চলের বাসিন্দারা। অর্থনীতিবিদ ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানীরাও মনে করেন, পদ্মা সেতু চালু হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলা সরাসরি রাজধানী ঢাকার সঙ্গে যুক্ত হবে। এর ফলে যাতায়াতে সুবিধার পাশাপাশি এই সেতু দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলসহ পুরো দেশের অর্থনীতিতেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে মনে করেন তারা। ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, বাংলাদেশের

উত্তরবঙ্গে বছরের একটি সময় মঙ্গা দেখা দিতো। এসময় মানুষ না খেয়ে মারা যেত। কিন্তু যমুনা নদীর উপর বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মানের ফলে ওই এলাকা থেকে মঙ্গা নামক শব্দটি দূর হয়ে গেছে। তারা এখন অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী। এখন আর কেউ খাবারের অভাবে মারা যায় না। বঙ্গবন্ধু সেতু চালু হওয়ার পর উত্তরবঙ্গের অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। তেমনি পদ্মা নদীর উপর পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রার মানের দৃশ্যমান পরিবর্তন ঘটবে। আমূল বদলে যাবে দক্ষিণ অঞ্চলের অর্থনীতিও। তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর নদীর এপারের জেলাগুলোতে সরাসরি প্রাকৃতিক গ্যাস আসার পরিকল্পনা রয়েছে। শিল্পপতি ও উদ্যোক্তারা এরই মধ্যে ফরিদপুরে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য বিভিন্ন

স্পটে জমি কিনে স্থাপনা নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন। ফরিদপুরে একটি স্পেশাল ইকোনোমিক জোন প্রতিষ্ঠা করার জন্য সরকারের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। জেলা প্রশাসক বলেন, ফরিদপুর-মাদারীপুর সীমান্তে অলিম্পিক ভিলেজ নির্মিত হচ্ছে। সেতু সংলগ্ন এলাকায় শেখ হাসিনা তাঁত পল্লীর কাজও শুরু হয়েছে। ফরিদপুরের ভাঙ্গায় বঙ্গবন্ধু মহাকাশ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের কাজও শুরু হতে যাচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠান স্থাপনের মধ্য দিয়ে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়নের নতুন দ্বার উন্মোচন হচ্ছে যার মধ্যে দিয়ে অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগের সৃষ্টি হবে। এর মধ্যে দিয়ে মানুষের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পাবে। তিনি আরও বলেন, পরিসংখ্যান থেকে জেনেছি, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর আমাদের জিডিপির হার আরো ১.৫ থেকে ২% বেড়ে

যাবে যেটি সারা দেশের মানুষকে সমৃদ্ধ করবে। ২০৩০ সালের মধ্যে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হওয়ার আমাদের যে লক্ষ্য রয়েছে, আমি মনে করি পদ্মা সেতু চালুর মধ্যে দিয়ে সেটি অনেক বেশি তরান্বিত হবে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মা সেতু ফরিদপুরের আর্থ সামাজিক অবস্থা আমূল বদলে দেবে। জেলার কৃষি অর্থনীতিতেও ঘটবে ইতিবাচক পরিবর্তন। বিশেষ করে ফরিদপুরের সালথা ও নগরকান্দা উপজেলার পেঁয়াজ চাষীরা সরাসরি লাভবান হবেন। এছাড়া সদরপুরের লালমি ও সবজি চাষীরা এবং মধুখালীর মরিচ চাষীরাও বিশেষভাবে লাভবান হবেন। দেশের মধ্যে পেঁয়াজ উৎপাদনে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ফরিদপুর। জেলার নয়টি উপজেলার মধ্যে শুধু সালথা ও নগরকান্দা উপজেলায় যে পেঁয়াজ

উৎপাদিত হয় তা বাকি ৭ উপজেলার সমান। এ কারণে সালথা ও নগরকান্দা উপজেলাকে জেলার পেঁয়াজের রাজধানী বলা হুয়। ফরিদপুরে মূলত দুই ধরনের পেঁয়াজ চাষ হয়। এর মধ্যে বেশিরভাগই হালি পেঁয়াজ। এছাড়া মুড়িকাটা জাতেরও আর কিছু পেঁয়াজ চাষ হয়। এ পেঁয়াজ সংরক্ষণযোগ্য নয়। দ্রুত পচনশীল হওয়ায় পঁচে যাওয়ার ভয়ে চাষীরা কম দামে এসব পেঁয়াজ হাট-বাজারে বিক্রি করে দেন। এতে করে অনেক সময় তাদের খরচের টাকাও উঠতো না বলে জানান তারা। হালি জাতের পেঁয়াজও বৃষ্টির পানির সংস্পর্শ পেলে এবং শুষ্ক স্থানে সংরক্ষণ করা না গেলে পঁচে নষ্ট হয়। এর ফলে যাদের সংরক্ষণের জায়গা নেই তারা বাধ্য হয়ে কম লাভে অথবা নামমাত্র মূল্যে মাঝারি ব্যবসায়ীদের

কাছে পেঁয়াজ বিক্রি করে দিতেন। কিন্তু পদ্মা সেতু চালু হয়ে গেলে আগামী মৌসুম থেকে কম দামে পেঁয়াজ বিক্রি করতে হবে না বলে জানান চাষীরা। বরং স্বপ্নের পদ্মা সেতু দিয়ে যানজট আর ভোগান্তি ছাড়াই রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় সালথা-নগরকান্দা তথা ফরিদপুরের পেঁয়াজ অনায়াসে পৌঁছে যাবে। ফলে নায্যমূল্য পাবেন পেঁয়াজ চাষীরা। ফরিদপুর কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ফরিদপুর জেলায় বর্তমানে পোঁয়াজ চাষীর সংখ্যা ৩০ হাজারের বেশি। প্রতি মণ পেঁয়াজ উৎপাদনের জন্য ৯০০ থেকে ১ হাজার টাকা খরচ হয় তাদের। সালথার বিভাগদী গ্রামের পেঁয়াজ ব্যাবসায়ী সাইফুল ইসলাম জানান, ট্রাকযোগে ঢাকার বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ নিতে খরচ পরে দেড় টাকা (১ টাকা ৫০ পয়সা)। ১০ টনের একটি

ট্রাকে পেঁয়াজ বোঝাই করে ঢাকা পাঠাতে ১৫ হাজার টাকার মতো ব্যয় হয়। কিন্তু পদ্মা সেতু চালু হলে ১০ হাজার টাকায় ট্রাক ভাড়া পাওয়া যাবে। এর ফলে দেড় টাকার জায়গায় খরচ নেমে আসবে এক টাকায়। পাশাপাশি সময়ও বাঁচবে। তিনি আরও জানান, আগে ট্রাক ভাড়া নিয়ে ফেরিঘাটের জ্যামে তিন চার দিন আটকে থাকতে হতো। কিন্তু পদ্মা সেতু চালু হলে প্রতিদিন ঢাকা গিয়ে মাল নামিয়ে আবার ফিরে আসা যাবে। এতে পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা টাকা এবং সময় দুই দিক থেকেই লাভবান হবে। রাজধানী খ্যাত ফরিদপুরে ছোট বড় ২৩টি পাটকল রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ১০টি চালু রয়েছে। বাকিগুলো বন্ধ রয়েছে। স্বপ্নের পদ্মা সেতু পাট ব্যবসায়ীদের দুরাবস্থাও লাঘব করবে বলে জানিয়েছেন এই শিল্পের সংশ্লিষ্টরা। ফরিদপুর অঞ্চলের অন্যতম পাটশিল্প উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান করিম গ্রুপের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর মিয়া জানান, আগে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে তিন থেকে চারদিন আমাদের পাট ও পাটজাত পণের চালান আটকে থাকতো। এর ফলে বিদেশি বায়ারদের কাছে সময়মত পণ্য পৌছে দেয়ার চুক্তি বা শর্ত হরহামেশাই ভঙ্গ হতো। তাতে আমাদের কোটি কোটি টাকার লোকসান গুনতে হতো। এখন ছোট মিলগুলোও নতুন করে বায়ার ধরতে পারবে, বন্ধ থাকা জুট ও স্পিনিং মিলগুলো আবার সচল হবে। ফরিদপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম বলেন, শুধু পাট নয়, পাটের সাথে সম্পৃক্ত সুতা, বিদেশে পাটের ব্যাগ, চটসহ বিভিন্ন পণ্যের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। শুধুমাত্র যাতায়াতের দীর্ঘসূত্রিতার কারণে এতদিন আমাদের জুটমিলগুলো মার খেয়েছে। পাটসহ বিভিন্ন কৃষি পণ্য নিয়ে অবর্ননীয় দূর্ভোগের শিকার হতে হয়েছে আমাদের ব্যাবসায়ী মহলকে। সেতু চালু হওয়ার পর এই ভোগান্তি দূর হয়ে যাবে। পদ্মা সেতু ফরিদপুরের ব্যবসায়ীদের জন্য অনেক বড় আশীর্বাদ। তিনি আরো বলেন, ঢাকা থেকে বিভিন্ন পণ্য আনতে ফেরিঘাটের জ্যামের কারণে দুই তিন দিন সময় লাগতো। এখন একদিনেই মালামাল চলে আসবে। অনেক সময় দেখা গেছে, যে দামে পণ্য কিনেছি, ফরিদপুর পর্যন্ত আসতে আসতে সময় লাগায় তার দর অনেকটাই গেছে। এর ফলে ব্যবসায়ীরা অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হতো। এখন আর তাদের সেই ক্ষতির আশংকা থাকবেনা। চেম্বার সভাপতি বলেন, একাধিক শিল্পপতি ও তাদের প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যেই শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য ফরিদপুরে বিভিন্ন জায়গা কিনছেন। অনেকে জায়গা ভরাটের কাজও শুরু করেছেন, আবার অনেকে অবকাঠামো নির্মানের কাজও শুরু করে দিয়েছেন। পদ্মা সেতু এই অঞ্চলের মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের পথ খুলে দিয়েছে। ফরিদপুর পৌরসভার মেয়র অমিতাভ বোসের মতে, ফরিদপুরের যে কৃষক তাদের উৎপাদিত পন্য সময় মতো ঢাকায় নিয়ে যেতে পারতোনা, সেতটিু চালু হওয়ার পর তারা সরাসরি পণ্য ঢাকায় নিয়ে রাজধানী ও তার আশপাশের অঞ্চলের বাজারে যেতে পারবেন। আগের চেয়ে অনেক কম সময়ে ঢাকায় যেতে পারবেন এই অঞ্চলের বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষ। সময় বেঁচে যাওয়ার অকিক কর্মঘণ্টা কাজ করার সুযোগ পাওয়ায় তারা আর্থিকভাবেও লাভবান হবেন। তিনি আরও বলেন, বাঙালীর জাতীয় জীবনে যে সকল বড় বড় অর্জন রয়েছে পদ্মা সেতু তার মধ্যে অন্যতম অর্জন। আর এটি সম্ভব হয়েছে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে। ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি কবিরুল ইসলাম সিদ্দিকী মনে করেন, পদ্মা সেতু চালু হলে এ অঞ্চলের অর্থনীতির চাকা দ্রুত ঘুরতে শুরু করবে। তিনি বলেন, ফরিদপুর অঞ্চলের মানুষ দীর্ঘদিন অবহেলিত ছিল। প্রধানমন্ত্রী আমাদের এই ব্যথা, কষ্টকে মর্মে মর্মে উপলব্ধি করে নানা ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে এই পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছেন। উন্নয়নের যে মহাযজ্ঞ তিনি দেখিয়েছেন, তাতে পৃথিবীর ইতিহাসে তার নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
টেক্সাসে লরি থেকে ৪৬ জনের মরদেহ উদ্ধার ফিলিপাইনে নোবেল জয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসার নিউজ সাইট বন্ধের নির্দেশ ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন বহুদূর বন্যা : বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাসে ফের শঙ্কা তবু থামছে না দামের ঘোড়া সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটোর সদস্যপদ পেতে সমর্থন দেবে তুরস্ক ক্ষোভে ফুঁসছে সারাদেশ শিক্ষক হেনস্তা ও হত্যা আইএমএফ থেকে ঋণ নিতে চাচ্ছে সরকার বুস্টার ডোজে গতি নেই সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী জাতিসংঘের মহাসাগর সম্মেলনে বাংলাদেশ করোনার সামাজিক সংক্রমণের শঙ্কা পুতিনকে জিততে দেবে না জি-৭ রাশিয়ার হামলায় সেভেরোদনেৎস্কের পর এবার পতনের মুখে লিসিচানস্ক সেন্সরে যাচ্ছে ‘পদ্মার বুকে স্বপ্নের সেতু’ ‘কীর্তিনাশার বুকে অমর কীর্তি’ সিলেটে বন্যার্তদের পাশে বিজিবি সদস্যরা স্বামীকে ছক্কা মারলেন পাকিস্তানের তারকা চরমপন্থা ঠেকাতে বাংলাদেশে স্থানীয় বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দিয়েছে ফেসবুক যেসব কারণে পেপটিক আলসার হয়, চিকিৎসা কলারোয়া পৌর প্রেসক্লাবের কমিটি গঠনঃ সভাপতি ইমরান, সম্পাদক জুলফিকার নির্বাচিত রাণীশংকৈলে​​​​​​​ মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত