পৃথিবীর শেষ রাস্তা, যেখানে একা গেলেই বিপদ! – ডোনেট বাংলাদেশ

পৃথিবীর শেষ রাস্তা, যেখানে একা গেলেই বিপদ!

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২১ নভেম্বর, ২০২১ | ৭:২৪ 483 ভিউ
পৃথিবীর শেষ রাস্তাটি কোথায় অবস্থিত? এ প্রশ্নের উত্তর অনেকেরই অজানা! ইউরোপের ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’ হলো পৃথিবীর শেষ রাস্তা। যেটি নরওয়েতে অবস্থিত। পৃথিবীর শেষ সীমানা নিয়ে বিশ্ববাসীর মনে কৌতুহলের শেষ নেই। বিশেষ করে অ্যাডভেঞ্চারপ্রেমীরা সে স্থানে দেখতে চান সরেজমিনে। তবে সেখানে পৌঁছোনো কি সম্ভব? অবশ্যই সম্ভব। পৃথিবীর শেষ রাস্তাটির নাম ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’। যেখানে একা যাওয়া নিষেধ। একা গেলেই নাকি বিপদ হতে পারে। উত্তরমেরুর মেরুজ্যোতি দেখা যেমন বিস্ময়ের ঠিক তেমনিই অ্যাডভেঞ্চারপ্রেমীরা স্বপ্ন দেখেন পৃথিবীর শেষ রাস্তা দিয়ে অন্তত একবার হলেও হাঁটবেন। পৃথিবীর শেষ রাস্তাটি অবস্থিত উত্তর গোলার্ধে অর্থাৎ নিরক্ষরেখার উপরের দিকে। তবে রাস্তাটিকে কেন বিশ্বের শেষ রাস্তা বলা হয় জানেন কি? আর কেনই বা সেখানে একা যাওয়া

নিষেধ? ইউরোপের ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’ বা পৃথিবীর শেষ রাস্তাটি উত্তর মেরুর গা ঘেঁষে চলে গেছে। এই পথ উত্তর ইউরোপের নর্ডক্যাপকে সংযুক্ত করেছে নরওয়ের ওল্ডারফিউওর্ড গ্রামের সঙ্গে। পথটির দৈর্ঘ্য প্রায় ১২৯ কিলোমিটার। ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’ তে যেতে গেলে ৫টি টানেল পার হতে হবে। এর মধ্যে সবচেয়ে লম্বা টানেল ‘নর্থ কেপ’র দৈর্ঘ্য ৬ দশমিক ৯ কিলোমিটার। এটি গিয়ে পৌঁছায় সমুদ্রতলের প্রায় ২১২ মিটার নীচে। এই পথে যেতে যেতে দু’পাশে নজরে আসবে অপূর্ব সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য। একইসঙ্গে সমুদ্র ও বরফ দেখবেন। বলা হয়, এই রাস্তায় জীবনে একবার অন্তত না গেলে অ্যাডভেঞ্চারপ্রেমীদের জীবন বৃথা। তবে পৃথিবীর শেষ রাস্তায় একা যাওয়া নিষেধ কেন? ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’তে যাওয়ার কিছু নিয়ম আছে। সেগুলো না মানলে

ওই রাস্তায় যাওয়ার কথা ভুলেও ভাববেন না। ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’ অভিনব ভৌগলিক অবস্থানের কারণে এখানে কাউকে একা যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয় না। এখানে একদিকে যেমন ভয়ানক গতিতে বাতাস বয় তেমনই এখানে ঠান্ডা। সেখানকার আবহাওয়া একেবারেই অনিশ্চিত। গ্রীষ্মকালেও এখানে বরফ পড়ে। আবার সমুদ্র উপকূলে হওয়ায় যে কোনো মুহূর্তে আবহাওয়া পরিবর্তন হতে পারে। আর শীতকালে এই রাস্তা একেবারেই বন্ধ থাকে। অতিরিক্ত তুষারপাত বা বৃষ্টি হলে আবার গাড়ি চালানো ভয়ানক বিপজ্জনক। যখন তখন সেখানে ঝড় উঠতে পারে। এই অপ্রত্যাশিত আবহাওয়ার কারণেই ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’তে একা যাওয়া নিষেধ। নরওয়ের ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’ তৈরির পরিকল্পনা শুরু হয় ১৯৩০ নাগাদ। এর ৪ বছর পর ১৯৩৪ সালে রাস্তাটি তৈরির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়।

পর্যটন, মৎস্যচাষ ইত্যাদির পরিকল্পনাও তাতে সামিল ছিল। ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’র বর্তমান দৈর্ঘ্য ১২৯ কিলোমিটার। যা সম্পূর্ণ হয়েছে ১৯৯২ সালে। তারপর থেকে এভাবেই চলছে। যদিও আন্তর্জাতিক মহলে ‘ই-৬৯ হাইওয়ে’টি পৃথিবীর শেষ রাস্তা বলে স্বীকৃতি পেয়েছে, তবে এরকম রাস্তা বিশ্বে আরও আছে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
প্যারিস মঞ্চে জেমস‘র সুরে এক টুকরো বাংলাদেশ সিরাজগঞ্জে উল্লাপাড়ায় পুত্রবধূকে ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগ শশুরের বিরুদ্ধে রানীশংকৈল কুলিক নদী থেকে এক ব‍্যাক্তির লাস উদ্ধার ঈদ ঘিরে পণ্যের বাড়তি দর সালমানের গোপন তথ্য ফাঁস করলেন শাহরুখ অত্যাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চাইলেন জেলেনস্কি ‌‘পুতিনের জয় বিশ্বের জন্য বিপর্যয়কর হবে’ কোটি কোটি টাকা খরচে নাচ-গান হয়, বন্যার্তরা ত্রাণ পায় না: মির্জা আব্বাস টেলিটক এমডি সাহাবুদ্দিনের লাগামহীন দুর্নীতি ‘ঢাকার চারপাশের ব্রিজ ভেঙে নৌ-চলাচলের উপযোগী করা হবে’ সৌদি আরবে আনন্দ উৎসবে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উদযাপন বাড়ছে করোনার প্রকোপ স্বাস্থ্যবিধির ওপর কড়াকড়ি আরোপের সময় এসেছে করোনা চিকিৎসায় প্রস্তুত নয় সব হাসপাতাল অর্ধেক সময়ে গন্তব্যে, উচ্ছ্বসিত যাত্রীরা সময়ের আগেই ডাব্লিউএইচও’র লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করল বাংলাদেশ সাহিত্য একাডেমির সর্বোচ্চ সম্মান ‘ফেলো’ শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় পদ্মা সেতু দিয়ে ৩ ঘণ্টায় বরিশাল ৫ ঘণ্টায় কুয়াকাটা কিয়েভজুড়ে ফের বিমান হামলার সাইরেন, আরও হামলার আশঙ্কা সিসিটিভিতে ধরা পড়ল সোনার দোকানে সশস্ত্র ডাকারির দৃশ্য এটা রাশিয়ার জন্য একটি উল্লেখযোগ্য অর্জন: যুক্তরাজ্য