মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে যাচ্ছে চতুর্থবার – ডোনেট বাংলাদেশ

শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে যাচ্ছে চতুর্থবার

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২৩ জুন, ২০২২ | ৬:০৫ 36 ভিউ
চতুর্থবারের মতো মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হচ্ছে শিক্ষা আইন। বুধবার এটির খসড়া চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ উপলক্ষ্যে এদিন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীকের সভাপতিত্বে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। গত বছরের ১৩ অক্টোবর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কমিটির দেওয়া পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী সেটি প্রস্তুত করা হয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব বলেন, শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের পর্যবেক্ষণ সামনে রেখে মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মতামত বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিদ্যমান আইন ও নীতিমালার সঙ্গে সাংঘর্ষিক কিছু আছে কি না, তাও সতর্কতার সঙ্গে দেখা হয়েছে। আসলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ভাষাগত ত্রুটিবিচ্যুতি ঠিক করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আসলে শিক্ষার

জন্য অসংখ্য আইন আছে। সবকিছু এক আইনে অন্তর্ভুক্ত করার যেমন দরকার নেই, তেমনই এটা সম্ভবও নয়। তাই প্রয়োজনের নিরিখে খসড়াটি প্রস্তুত করা হয়েছে। সূত্রমতে, এর আগে শিক্ষা আইন যখন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়, তখন তাতে নানা ধরনের ত্রুটি চিহ্নিত করে সংশ্লিষ্ট কমিটি। যে কারণে গত অক্টোবরে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠক থেকে এটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। ২০১০ সালে জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন করে সরকার। এরপর এটির পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ২০১১ সালে এই আইন তৈরির উদ্যোগ নেয়। এই আইনের বিভিন্ন দিক প্রথম থেকেই ব্যাপক আলোচনায় এসেছিল। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে-শিক্ষকদের কোচিং ও কোচিং সেন্টার, প্রাইভেট টিউশন, নোট-গাইড ও সহায়ক পাঠ্য ব্যবসা। শিক্ষকদের বিরুদ্ধে

বিভিন্ন ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণ ও বিদেশি শিক্ষাক্রমের প্রতিষ্ঠান পরিচালনা ইত্যাদিও আলোচনায় ছিল। প্রথম খসড়া প্রকাশের পরপরই এ আইনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শিক্ষক ও পুস্তক সংগঠন আন্দোলনে নেমেছিল। ফলে প্রথমে শাস্তির বিধানসহ একটি শক্তিশালী আইনের খসড়া প্রস্তাব করা হলেও ২০১৩ সালে তা প্রত্যাহার করা হয়। এরপর ‘দুর্বল’ করে খসড়া তৈরি করা হয়। পরে রহস্যজনক কারণে আইনটির খসড়া তৈরির কাজে ধীরগতির সৃষ্টি হয়। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে প্রথমে শিক্ষা আইনের খসড়া অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু এর ঢাউস আকৃতি, অস্পষ্টতা, নানা সীমাবদ্ধতার কারণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ফেরত আসে। সূত্রমতে, প্রস্তাবিত আইনে শিক্ষকদের শাস্তির ব্যাপারে মোটামুটি নমনীয়তা দেখানো হয়েছে। যথারীতি বাণিজ্যিক কোচিংকে বৈধতা দেওয়া

হয়েছে। শিক্ষকরা কোচিং সেন্টার করলেও সেখানে নিজ প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের পড়াতে পারবেন না। তারা অন্য প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ ১০ জন পড়াতে পারবেন। এতে বলা হয়, কোনো নামেই নোট-গাইড চলবে না। আইনে পাঁচ স্তরের শিক্ষাব্যবস্থার প্রস্তাব করা হয়েছে। এগুলো হলো-প্রথম শ্রেণির আগে প্রাক-প্রাথমিক, পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত প্রাথমিক, দশম শ্রেণি পর্যন্ত মাধ্যমিক, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণি উচ্চ মাধ্যমিক এবং এর পর উচ্চশিক্ষা স্তর। পরে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে দ্বিতীয়বার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু পরের বছর তা ১২টি পর্যবেক্ষণসহ ফেরত আসে। প্রস্তাবিত ১৮ পৃষ্ঠার খসড়ায় মোট ৫৭টি ধারা যুক্ত করা হয়েছে। ২০১৩ সালের প্রথম খসড়ায় ৬৭টি ধারা ছিল।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
টেক্সাসে লরি থেকে ৪৬ জনের মরদেহ উদ্ধার ফিলিপাইনে নোবেল জয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসার নিউজ সাইট বন্ধের নির্দেশ ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন বহুদূর বন্যা : বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাসে ফের শঙ্কা তবু থামছে না দামের ঘোড়া সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটোর সদস্যপদ পেতে সমর্থন দেবে তুরস্ক ক্ষোভে ফুঁসছে সারাদেশ শিক্ষক হেনস্তা ও হত্যা আইএমএফ থেকে ঋণ নিতে চাচ্ছে সরকার বুস্টার ডোজে গতি নেই সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী জাতিসংঘের মহাসাগর সম্মেলনে বাংলাদেশ করোনার সামাজিক সংক্রমণের শঙ্কা পুতিনকে জিততে দেবে না জি-৭ রাশিয়ার হামলায় সেভেরোদনেৎস্কের পর এবার পতনের মুখে লিসিচানস্ক সেন্সরে যাচ্ছে ‘পদ্মার বুকে স্বপ্নের সেতু’ ‘কীর্তিনাশার বুকে অমর কীর্তি’ সিলেটে বন্যার্তদের পাশে বিজিবি সদস্যরা স্বামীকে ছক্কা মারলেন পাকিস্তানের তারকা চরমপন্থা ঠেকাতে বাংলাদেশে স্থানীয় বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দিয়েছে ফেসবুক যেসব কারণে পেপটিক আলসার হয়, চিকিৎসা কলারোয়া পৌর প্রেসক্লাবের কমিটি গঠনঃ সভাপতি ইমরান, সম্পাদক জুলফিকার নির্বাচিত রাণীশংকৈলে​​​​​​​ মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত