সিরাজগঞ্জের চৌহালীর গুচ্ছগ্রামের ঘরগুলো সবুজে ঘেরা আর শান্তির নীড় – ডোনেট বাংলাদেশ

সিরাজগঞ্জের চৌহালীর গুচ্ছগ্রামের ঘরগুলো সবুজে ঘেরা আর শান্তির নীড়

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৫ অক্টোবর, ২০২২ | ৫:৩০ 39 ভিউ
যমুনার ভাঙন বিধ্বস্ত সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলা থেকে পুর্ব দিকে প্রায় দুই তিন কিলোমিটার পথ পেরোলেই উপজেলার খাষকাউলিয়া ইউনিয়নের কুরকী গুচ্ছগ্রামের সারি সারি রঙিন ঘর। এর এক পাশে রয়েছে বিশাল সবুজের মাঠ। বাড়িগুলোর সামনে শোভা পাচ্ছে সারি সারি ফুলের গাছ। নানারকম সবজির সবুজের সমারোহ। রঙিন টিনের আধাপাকা ঘরগুলো দেখলে মন জুড়িয়ে যায়। এ যেন এক খণ্ড শান্তির নীড়। এই নীড়েই সুখের স্বপ্ন গড়েছেন সহায়-সম্বলহীন এক দল নারী-পুরুষ। ব্যস্ততম কুরকী বেবি স্ট্যান্ড সড়কের গা ঘেঁষে গড়ে ওঠা গুচ্ছগ্রামের এই পল্লিতে বসবাসকারী পরিবারের সংখ্যা ১০-১২। জনসংখ্যার হিসাবে এখানে ১৫-২০ জন নারী-পুরুষের বসতি। শুরুতে জায়গাগুলো ছিল ব্যক্তি

মালিকানার দখলে পরে উপজেলা প্রশাসনের প্রচেষ্টায় জমিগুলো উদ্ধার করে ভুমিহীনদের নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়৷ বর্তমানে এখন ভূমিহীনদের জন্য নির্মিত প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরেই শান্তির বসবাস তাদের। প্রতি বছরই নির্মাণ করা হচ্ছে কয়েকটি করে ঘর। ফলে এক সময় সবাই ঘর পাবেন এমন বিশ্বাস সবারই। মাছ চাষ, হাঁস-মুরগি, গবাদি পশু পালন, সবজির বাগানসহ নানা উপায়ে স্বাবলম্বী এই গ্রামের মানুষ। শিক্ষার ছোঁয়াও লেগেছে তাদের মধ্যে। এখানকার বেশ কয়েকজন জন ছেলেমেয়ে পড়ালেখা করে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। সরেজমিনে এই গুচ্ছগ্রামে গিয়ে দেখা যায়, পুরুষরা ছুটছেন দৈনন্দিন কাজে। নারীদের কেউ কেউ ব্যস্ত হাঁস-মুরগি, গরু-ছাগলের খামার আর নিজ আঙিনায় গড়ে তোলা সবজির পরিচর্যা নিয়ে। আবার কেউবা

ব্যস্ত সেলাইয়ের কাজে। রহিমা খাতুন নামের এক নারী জানান, স্থানীয় এনজিও থেকে সামান্য কিছু ঋণ নিয়ে শুরু করেন হাঁস-মুরগি পালন। মাস শেষে এখন তার আয় পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা। সংসারে অভাব নেই।, শাহিদা খাতুনের মতো এই সুখের পল্লিতে সুখে আছেন রহিমা, সোনা ভানু, নাজমা খাতুন, ভ্যানচালক মাবুদ আলী , ঠান্ডু ও মনির হোসেনসহ এখানকার ১০-১২ পরিবারের অন্তত ৩০ জন বাসিন্দা। আর গুচ্ছগ্রামের টিনের চালে ঝুলছে বাহারী জাতের শীতের সবজি, যেমন লাউ, কুমড়া, সীমসহ নানাজাতের সবজি ৷ এদিকে উপজেলা প্রশাসন ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার (পিআইও) মোহাম্মদ মজনু মিয়া বলেন, গুচ্ছগ্রামে বসবাসকারী ১০-১২টি পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর করে দেওয়া হয়েছে।

পর্যায়ক্রমে এ উপজেলায় সবাইকে ঘর দেওয়া হবে। এ ছাড়া সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি এবং সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। নারীদেরও আত্মনির্ভরশীল করে তুলতে নানা ধরনের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শও দেওয়া হয়৷

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
সমাবেশের জন্য কমলাপুর স্টেডিয়াম চেয়েছে বিএনপি বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ে তালা, রাস্তায় ব্যারিকেড মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই র‌্যাব সদস্যসহ নিহত ৩ বাসা থেকে ফখরুলের জন্য নাস্তা নিয়ে গেছে ডিবি কার্যালয়ে গভীর রাতে মির্জা ফখরুলকে তুলে নেওয়ার ঘটনার বর্ণনা দিলেন স্ত্রী ঠাণ্ডা মাথায় যা করার, সেটাই করছি: নুসরাত ‘সেখানে থাকবে, খিচুড়ি পাক হবে, দেশ পাল্টে দেবে’ অস্ত্রগুলিসহ কলারোয়ার হৃদয় হোসেন নড়াইলে আটক বিএনপি ও জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদে কলারোয়া উপজেলা আ.লীগের বিক্ষোভ মিছিল নওগাঁয় টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট ভবন নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন। তারাকান্দায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ: ৩৬ নেতাকর্মির নামে মামলা গাঁজাসহ রাবি ছাত্রলীগের চার নেতা আটক মির্জা ফখরুল ও মির্জা আব্বাসকে বাসা থেকে তুলে নেওয়ার অভিযো বিএনপির সমাবেশস্থল নিয়ে দ্বন্দ্ব, যা বললেন পুলিশ কর্মকর্তা হারুন বিএনপি নেতা-কর্মীদের মুক্তির বিষয়ে পুলিশের আশ্বাস ডলার সংকটে কাঁচামাল আমদানি আরও নিম্নমুখী মার্কিনিদের জন্য সতর্কতা জারির পরিস্থিতি হয়নি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের অযুত সম্ভাবনা বিপদাপন্ন করে তোলা হয়েছে অবশেষে নয়াপল্টন থেকে সরে এলো বিএনপি রোকেয়া দিবস আজও তিনি নারীসমাজের পথপ্রদর্শক