ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার কারিগর অধ্যাপক ড. রশীদ আসকারী


অথর
ক্যাম্পাস সংবাদদাতা   ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত :২ জুলাই ২০২০, ৮:৪৯ পূর্বাহ্ণ | পঠিত : 138 বার
0
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার কারিগর অধ্যাপক ড. রশীদ আসকারী

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ( ইবি) কে অন্ধকারচ্ছন্ন থেকে মুক্ত করে অসাম্প্রদায়িক, আধুনিক, উন্নত, প্রগতিশীল ও বিজ্ঞান চর্চার অন্যতম মাধ্যম হিসাবে গড় তুলতে কাজ করে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ-আসকারী। যা সত্যিকার অর্থে দেশী এবং বিদেশী শিক্ষার্থীদের কাছে জ্ঞান অর্জনের অন্যতম সেরা প্লাটফর্ম। অধ্যাপক ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ-আসকারী লেখক হিসাবে রশীদ আসকারী হিসাবেই বেশ পরিচিত।অধ্যাপক রশীদ আসকারী একাধারে লেখক, কলামিস্ট, কথাসাহিত্যিক, সমালোচক, রাজনীতি বিশ্লেষক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও শিক্ষাবিদ হিসাবে পরিচিতি পান। বর্তমানে তিনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বাদশ উপাচার্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। দুই যুগের অধিককাল ধরে সৃজনশীল, মননশীল এবং গবেষণাধর্মী লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন তিনি। পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি একটি আধুনিক, প্রগতিশীল,

অসাম্প্রদায়িক, বিজ্ঞানমনস্ক সমাজ বিনির্মাণে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে কাজ করছেন।অধ্যাপক রশীদ আসকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব গ্রহণের পূর্বে ইবির ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। পাশাপাশি তিনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৭ মেয়াদে ছাত্র উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন।অধ্যাপক আসকারী ১৯৯৯-২০০০ সাল পর্যন্ত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। পরে ২০১৪ সালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং একই বছর তিনি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।তাঁর প্রকাশিত ইংরেজী-বাংলা গ্রন্থের সংখ্যা ৮ টি। তন্মধ্যে একটি তাঁর নিজের সম্পাদিত। তাঁর লেখা গবেষণা প্রবন্ধের সংখ্যা ২৫ টি। আর্ন্তজাতিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে ১২টি। তাঁর রচিত ইংরেজি

ছোট গল্প ওহায়িও স্টেটইউনিভার্সিটি ইউএসএ থেকে প্রকাশিত জার্নাল অব দি পোস্ট কলোনিয়াল কালচারস এন্ড সোসাইটিস, ভারতের কনটেম্পরারি লিটারারি রিভিউ (সিএলআরঅই) থেকে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি ভারত সোসাইটির আজীবন সদস্য। অসাধারণ বুদ্ধিদীপ্ত এবং মেধাবী তিনি জীবনের বিভিন্ন সময়ে দেশে এবং বিদেশে বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ের উপর বিশেষ জ্ঞান এবং প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।একাডেমিকের পাশাপাশি প্রশাসনিক ভাবেও দক্ষতার সাথে বিশ্ববিদ্যালয়কে পরিচালনা করছেন অধ্যাপক রশীদ আসকারী। তিনি ১৯৯০ সালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পরমুহুর্ত থেকেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের এবং অসাম্প্রদায়িক বিশ্ববিদ্যালয় গঠনের লক্ষ্যে জাতির পিতার রক্ত এবং রাজনীতির সুযোগ্য অধিকারী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে কাজ করে যাচ্ছেন। ২০১৬ সালে ইবির আচার্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ

সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ তাকে উপাচার্য হিসেবে মনোনীত করার পর তাঁর লড়াকু মেধা এবং পরিশ্রম দিয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি পূর্ণাঙ্গ অসাম্প্রদায়িক বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করেছেন।আজ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিকতার উন্নয়ন দেখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রায় ৫৩৭ কোটি টাকার মেগা প্রকল্প রশীদ আসকারী প্রশাসনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য উপহার হিসেবে দিয়েছেন। সেই প্রকল্পের কাজ গুলো এখনও প্রক্রিয়াধীন চলছে। আবাসন এবং ভবন সংকটের জন্য ১০ তলা বিল্ডিংয়ের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন প্রকল্প চলমান রয়েছে। প্রকল্পসমূহ বাস্তবায়ন হলে ১৯৮০ সালের বিশ্ববিদ্যালয় আইনের মর্যাদায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় পূর্ণাঙ্গ আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পরিণত হবে। যার সুবিধা সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী -কর্মকর্তা-কর্মচারী ভোগ করতে পারবে। ইতোমধ্যেই ইসলামী

বিশ্ববিদ্যালয়কে রোল মডেল হিসেবে পরিণত করায় দেশের বিভিন্ন জায়গাসহ বিদেশেও অনেক সম্মান এবং পুরস্কার অর্জন করেছেন অধ্যাপক রশীদ আসকারী। তাঁর এই উন্নয়নশীল সাফল্যের পিছনে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ এবং প্রগতিশীল চর্চায় বিশ্বাসী শিক্ষক সংগঠন (শাপলা ফোরাম), (বঙ্গবন্ধু পরিষদ) সহ বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারী সহ টিএসসি ভিত্তিক ছাত্রবান্ধব সংগঠনগুলো।

No Comments

ADD: 1762020